আপডেট : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১০:৩১

জাবিতে কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের ‘মশাল যাত্রা’

নবিউল ইসলাম বাপ্পি, জাবি প্রতিনিধি
জাবিতে কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের ‘মশাল যাত্রা’

২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে সামনে রেখে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি)  ‘টর্চ লাইট র‌্যালী ফর পিচ’ নামের একটি মশাল যাত্রা করেছে কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের একটি দল।

শনিবার দুপুরে সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের ‘বঙ্গ সাহিত্য সমিতি ও প্রাক্তণী সংঘ’ জাবির কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। এতে অংশ নেয় ওপার বাংলার ৮ সদস্যের একটি দল। দলটির নেতৃত্ব দিয়েছেন সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের অধ্যাপক আশীষ মিত্র।

দলের অন্যান্য সদস্যরা হচ্ছেন বঙ্গ সাহিত্য সমিতির সম্পাদিকা শুভেচ্ছা চৌধুরী, সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের প্রাক্তণী শুভ্রশঙ্খ বোস, অরিজিৎ দে, শিক্ষার্থী রীতশ্রী পাল, পল নিয়ন গোমেস, অসীম ভর্মা ও সুজয় সাহা।

শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের আগে তারা শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে মশাল প্রজ্জ্বলন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন জাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম, ছাত্র-শিক্ষক ও পরামর্শদান কেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক রাশেদা আখতার, শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্রের পরিচালক মো. সিফাতুল্লাহ প্রমুখ।

শুভেচ্ছা চৌধুরী বাংলা বলেন, বিশ্বের দরবারে বাঙালিয়ানা ও বিশ্বের সমস্ত মাতৃভাষার হৃত সম্মান পুনরুদ্ধারের জন্য এই প্রয়াস। প্রতি বছরই ভাষা আন্দোলনে শহীদদের স্মৃতিকে স্মরণ করতে বন্ধুপ্রতীম দুই দেশের শিক্ষার্থীরা একত্রিত হন। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস দুই বাংলার জন্যই গৌরবের। মাতৃভাষাকে রক্ষার্থে দুই বাংলাকে একযোগে কাজ করতে হবে।’

অধ্যাপক আশীষ মিত্র বলেন, ‘দুই বাংলার অভিন্ন সংস্কৃতি আমাদের মধ্যে এক আত্মার সংযোগ ঘটিয়েছে। এ সংযোগ কোনও দিনই বিচ্ছিন্ন হবার নয়।’

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বঙ্গ সাহিত্য সমিতির সম্পাদিকা শুভেচ্ছা চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম ও মো. সিফাতুল্লাহকে বঙ্গ সাহিত্য সমিতির পক্ষ থেকে সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়। সর্বোপরি সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পীদে পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

উপরে