আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৫ ১৪:২০

জেএসসিতে অবস্থান হারিয়েছে বরিশাল শিক্ষাবোর্ড

বিডিটাইমস ডেস্ক
জেএসসিতে অবস্থান হারিয়েছে বরিশাল শিক্ষাবোর্ড

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় পাশেরহারে দেশসেরা অবস্থান হারিয়েছে বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড। গত ৫বছর ধরে এ অবস্থান ধরে রেখেছিলো তারা। শিক্ষাবোর্ড কতৃপক্ষ বলছেন প্রথম অবস্থান  অর্জন না করলেও ফলাফল ভালো হয়েছে।

বরিশাল শিক্ষাবোর্ড সচিব  আ. মোতালেব হাওলাদার বৃহষ্পতিবার বেলা সারে ১১ টায় আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষনা করেন। এরপর বরিশাল শিক্ষাবোর্ডের ফলাফলের পরিসংখ্যান তুলে ধরেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক মুহাম্মদ শাহ আলমগীর।  তার দেয়া পরিসংখ্যান অনুসারে এ বছর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষায় বরিশাল শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৯৭ দশমিক ২৬ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৩ হাজার ৪৬৪ জন। বরিশাল শিক্ষা বোর্ড থেকে মোট ১লাখ ৬হাজার ৮৫ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ১লাখ ৩ হাজার ১৮১ জন। এর মধ্যে ৫০ হাজার ৯৭৪জন ছাত্র পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৪৯ হাজার ৩২৯ জন। পাসের হার ৯৬ দশমিক ৭৭ ভাগ। ৫৫ হাজার ১১১ জন ছাত্রী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৫৩ হাজার ৮৫২ জন। পাসের হার ৯৭ দশমিক ৭২ ভাগ। জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের মধ্যে ৪ হাজার ৯০৩ জন ছাত্র এবং ৮ হাজার ৫৬১ জন ছাত্রী।

 

তবে এর আগে ২০১০ সালে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা পদ্ধতি শুরু হওয়ার প্রথম বছরই ৮১ দশমিক ৭৫ ভাগ পাসের হার নিয়ে দেশের সকল শিক্ষাবোর্ডকে পিছনে ফেলে প্রথম স্থান অর্জন করে বরিশাল শিক্ষাবোর্ড। ওই বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৪৭৮ জন। ২০১১ সালে পাসের হার বৃদ্ধি পেয়ে হয় ৯৩ দশমিক ১৩ ভাগ। জিপিএ-৫ পায় ১ হাজার ৮৮৬ জন। ২০১২ সালে পাসের হার ৯৩ দশমিক ৮০ ভাগ। জিপিএ-৫ পায় ৩ হাজার ১৭২ ভাগ। ২০১৩ সালের ৯৬ দশমিক ৬০ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১০ হাজার ৭৮৫ জন। আর গত বছর ২০১৪ সালে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষায় বরিশাল শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ছিলো ৯৭ দশমিক ৯২ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছিলো ১০ হাজার ২৮৫ জন। ওই পাঁচ বছর বরিশাল শিক্ষাবোর্ড দেশসেরা ছিলো। কিন্তু এ বছর ওই অবস্থান হারিয়ে ফেলেছে।

 

ফলাফলে সর্বক্ষেত্রে মেয়েরা এগিয়ে রয়েছে। মোট পরীক্ষার্থীর মধ্যে ছেলেদের চেয়ে মেয়ে পরীক্ষার্থী ছিল ৪ হাজার ১৩৭ জন বেশী। ফলাফলেও মেয়েরা এগিয়ে রয়েছে। ছেলেদের পাসের হার ৯৬ দশমিক ৭৭। অপরদিকে মেয়েদের পাসের হার ৯৭ দশমিক ৭২। ছেলেরা জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪ হাজার ৯০৩ জন। অপরদিকে মেয়েরা জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮ হাজার ৫৬১ জন। শিক্ষাবোর্ডের অধীন ৬ জেলার মধ্যে পাসের হারে ঝালকাঠি জেলা শীর্ষস্থান অর্জন করেছে। এখানে ১৯৮টি স্কুলের ১০ হাজার ৫০জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৯ হাজার ৬১০ জন। পাসের হার ৯৮ দশমিক ৬৭। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৪১১ জন। আর সর্বশেষ অর্থাৎ ষষ্ঠ অবস্থানে থাকা বরগুনা জেলার ১৮২ স্কুল থেকে ১২ হাজার ২২৩ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ১১ হাজার ৪৬ জন। পাসের হার ৯৩ দশমিক ২০। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ১৩৩ জন।

 

বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু জিয়াউল হক বলেন, শিক্ষাবোর্ডের ফলাফল ধারাবাহিকতা রয়েছে। পাশের হার তেন একটা কমেনি। জিপিএ ৫বেড়েছে তুলনামূলকভাবে অনেক। তিনি বলেন অবস্থান ধরে রাখার কিছু নেই। শিক্ষার্থীরা পরিশ্রম করে ভালো ফলাফল করেছে এটাই অনেক।

বিডিটািইমস.কম/বরিশাল অফিস

 

 

 

উপরে