আপডেট : ২৮ জুন, ২০১৯ ১০:১০

হিন্দু ছেলেকে বিয়ে, সিঁথিতে সিঁদুর; তবুও বলছেন আমি মুসলিম!

অনলাইন ডেস্ক
হিন্দু ছেলেকে বিয়ে, সিঁথিতে সিঁদুর; তবুও বলছেন আমি মুসলিম!

বিয়ের পর প্রথম দিন সংসদে গিয়ে লাইমলাইট কেড়ে নিয়েছিলেন অভিনেত্রী ও তৃণমূল সাংসদ নুসরাত জাহান। শাড়ি, মেহেন্দি, সিঁদুর পরে যখন শপথ নিচ্ছিলেন সব ফোকাস ছিল তার দিকে। দিন কয়েক আগে তুরস্কের বোদরুমে ব্যবসায়ী নিখিল জৈনের সঙ্গে সাতপাকে বাঁধা পড়েছেন নুসরাত। সে কারণে প্রথম দিন শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি। তার সঙ্গে বিয়ের অংশ নিতে তুরস্ক যাওয়ায় ছিলেন না আরেক নায়িকা ও সাংসদ মিমি চক্রবর্তীও।  

বিয়ের পর সাজপোশাকে নিজেকে কোনো নির্দিষ্ট ধর্মের বেড়াজালে আবদ্ধ রাখেননি নুসরাত জাহান। সে কারণেও প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে তাকে। তার বিয়ের কয়েকটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলে তাতে সনাতন ধর্মের এক যুবকের মন্তব্য, ‘অভিনন্দন নুসরাত, সনাতন ধর্মে তোমাকে স্বাগতম।’ তবে নুসরাতের দাবি, তিনি ধর্ম পরিবর্তন করেননি। এই বিষয়সহ সিনেমা, রাজনীতি, বিয়ে ও জীবনের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন অধ্যায় নিয়ে সম্প্রতি ভারতের নিউজএইট্টিনের সঙ্গে কথা বলেছেন নুসরাত।

ধর্ম পরিবর্তন সম্পর্কে ওই সাক্ষাৎকারে নায়িকা বলেন, ‘আমার মাথায় সিঁদুর দেখে অনেকে প্রশ্ন করেছেন, আমি কি হিন্দুকে বিয়ে করে হিন্দু হয়ে গেলাম? আমার তো মনে হয় কোন ধর্ম অনুসরণ করব, সেই সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকার সবার রয়েছে। তবে আমি বলব, মুসলিম ছিলাম, মুসলিমই আছি। জন্মসূত্রে ইসলাম, সেটাই অনুসরণ করছি। কিন্তু সব ধর্ম এবং তার নিয়মের প্রতি আমার শ্রদ্ধা রয়েছে। আমি এবং আমার স্বামী যার যার ধর্ম পালন করছি। আমার তো মনে হয় এটাই স্বাভাবিক।’

অভিনয় জীবনে বেশ কয়েকবার ট্রোলিংয়ের শিকার হয়েছেন নুসরাত। সংসদের প্রথম দিন থেকেও ট্রোলিংয়ে জড়িয়ে গেছে তার কেরিয়ার। তবে এসব ঘটনাকে খুব একটা গুরুত্ব দিতে নারাজ নায়িকা। নুসরাতের কথায়, ‘‘আমি যে কতবার ট্রোলড হয়েছি, তার কোনো হিসাব নেই। আমার মনে হয় ট্রোলিং ভালোবাসারই ভিন্ন প্রকাশ। আসলে মানুষ এসব করে দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য। মনোযোগ না পেলেই ট্রোলিং শুরু করেন। জীবনে খারাপ কিছুকে কখনোই গুরুত্ব দিইনি। কাজই সব সময় আমার হয়ে কথা বলেছে। এবারও তাই হবে।’

প্রচলিত রয়েছে, ভারতে অভিনয় জগৎ থেকে যারা ইতিপূর্বে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন, সংসদে তাদের হাজিরা কম। তারা নাকি সংসদের প্রশ্নোত্তরেও বিশেষ অংশ নেন না। তবে বসিরহাট থেকে বিপুল ভোটে বিজয়ী হওয়া তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ নুসরাতের দাবি, তিনি ব্যতিক্রম। তার কথায়, ‘আমার লোকসভা এলাকার সাধারণ মানুষের প্রতিনিধি আমি। ওদের সাহায্য দরকার। তাই সংসদের কাজে আমি নিয়মিত অংশ নেব। ওদের যখনই সাহায্য প্রয়োজন হবে, আমাকে পাবে।’

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে