আপডেট : ২১ মার্চ, ২০১৬ ১৫:০০

দিতির শেষ বিদায়ে তারকাদের অশ্রুসিক্ত অভিব্যক্তি

বিনোদন ডেস্ক
দিতির শেষ বিদায়ে তারকাদের অশ্রুসিক্ত অভিব্যক্তি

নিজের অভিনয় দিয়ে দর্শক মনে জায়গা করে নিয়েছিলেন দিতি। এক সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী পারভিন সুলতানা দিতি দীর্ঘদিন ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে শেষ পর্যন্ত না ফেরার দেশে চলে গেলেন।

২০ মার্চ রোববার বিকেলে রাজধানীর এক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন এ গুণী অভিনয়শিল্পী দিতি। তার মৃত্যুর খবর পেয়েই তাকে শেষবার দেখার জন্য হাসপাতালে ছুটে গিয়েছিলেন তার দীর্ঘদিনের দিনের সহকর্মীরা। তার দিতিকে শেষবারের মতো দেখতে এসে তাদের আবেগ-অনুভূতির কথা জানান।

অশ্রুভেজা কন্ঠে ববিতা জানান,“দিতি অনেক লক্ষ্মী একটা মেয়ে ছিল। যেমনি ভালো অভিনয় করতো তেমনি ভালো গান গাইতো। সবাইকেই দিতি খুব হাসিখুশিতে রাখতে। সবার সাথে ভালো ব্যবহার করতো। আমি লাস্ট যেদিন এসেছি আমাকে সারা মুখে চুমু খেয়ে কতো আদর করছিলো। আমি সে ক্ষণের কথা কখনো ভুলতে পারবো না।”

চিত্রনায়ক ওমর সানীও এসেছিলে শেষ দেখা দেখতে। তিনি বলেন, “দিতি সিনেমা খুবই ভালোবাসতো। সিনেমা ছাড়া কিছুই বুঝতো না। আমি শুধু এতটুকুই বলতে চাই, আল্লাহ তাকে যেখানে নিয়ে গেছে সেখানে যেন অনেক ভালো থাকে। দিতিকে আল্লাহ যেন জান্নাতবাসী করে।”

দিতির সম্পর্কে বলতে গিয়ে মঞ্চ, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র অভিনেতা তারিক আনাম খান বলেন,“দিতির সঙ্গে আমি বেশ কিছু কাজ করেছি। তার সাথে আমার কাজের খুব ভালো একটা রসায়ন ছিলো। দিতি অত্যন্ত গুনী ও মেধাবী শিল্পী। দিতির চলে যাওয়ায় আমাদের চলচিত্র শিল্প ইনফ্যাক্ট পুরো মিডিয়ার জন্য অপূরনীয় ক্ষতি। দিতি এত তাড়াতাড়ি আমাদের ছেড়ে চলে যাবে, এটা আসলেই মেনে নেয়া কঠিন।”

খলনায়ক মিশা সওদাগরও দেখতে এসে অনুভূতি জানাতে গিয়ে বলেন, “দিতি আপার সঙ্গে কত দিন কাজ করেছি। পৃথিবী একটা ভালো মানুষকে হারালো। দেশ একটা শিল্পী হারালো। আর আমরা একজন সহকর্মী হারালাম। কারণ তিনি একাধারে ছিলেন ধার্মিক, আধুনিক এবং সামাজিক। এই তিনটির সম্বনয় শিল্পীরা করতে পারে না কিন্তু দিতি আপা এটা করতে পেরেছেন। আপনারা সকলেই তার জন্য দোয়া করবেন, তার পরিবারের জন্য দোয়া করবেন।”

মাহিয়া মাহি বলেন, আমি উনার সঙ্গে ভালোবাসি চলচ্চিত্রে কাজ করেছি। এ চলচ্চিত্রে উনি আমার শ্বাশুড়ির চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। তারপর থেকেই আমি ওনাকে শ্বাশু মা বলে ডাকতাম। অনেক ভালো এবং অদ্ভুদ একজন মানুষ ছিলেন তিনি। মানুষের টাকার প্রতি একটা নেশা থাকে। উনার মধ্যে এ প্রবণতা ছিল না বললেই চলে। আমি শ্বাশুমার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

শেষ বারের মতো দেখতে এসে র্নিমাতা এস এ হক অলিক বললেন,“দিতি আপা যতটা ভালো অভিনেত্রী তার চেয়ে বেশি ভালো মানুষ ছিলেন। তাকে নিয়ে আমি একটি সিনেমাই করেছি। তার প্রযোজনায়ও অনেক নাটক করেছি। যখনই তাকে নিয়ে শুটিং করেছি মনে হয়নি যে আমরা শুটিং করছি। অনেক সময়ই দিতি আপা আমাদের জন্য খিচুড়ি রান্না করে নিয়ে আসতো। আমরাও আপাকে বলতাম, আপা আপনার হাতের রান্না খিচুড়ি খেতে চাই। এখন আর সেই কথাটা বলতে পারবো না। দিতি আপা যেখানেই আছে ভালো থাকুক। আল্লাহ তাকে বেহেশত নসীব করুক।”

টিভি নাটকে দিতিকে কাছ থেকে দেখার সুযোগ বাঁধনের হয়েছে। দিতির মৃত্যুর খবর পেয়ে বাঁধন বলেন, ‘আমি পুবাইল থেকে শুটিং বাতিল করে চলে আসছি। দিতি আপার কাছে যাচ্ছি। আমি কিচ্ছু বলতে পারব না, কিচ্ছু না।’

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে