আপডেট : ২০ নভেম্বর, ২০১৮ ১৫:১৭

‘মাশরাফি মানুষ নন, ভগবান’

অনলাইন ডেস্ক
‘মাশরাফি মানুষ নন, ভগবান’

আসন্ন সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন আমাদের জাতীয় ক্রিকেট দলের কাণ্ডারী মাশরাফি বিন মর্তুজা। এ নিয়ে নানা আলোচনা সমালোচনা চলছেই। কিন্তু তিনি যে কেবলই একজন ক্রিকেটার নন, একজন জনদরদী মানুষ সে কথা ক’জন জানে! তার এইসব গুণের কথা বর্ণনা করে মঙ্গলবার (২০ নভেম্বর) ঘণ্টা খানেক আগে নিজের টাইমলাইনে পোস্ট দিয়েছেন নিঝুম মজুমদার নামের একজন আইনজীবী।

সেখানে তিনি মাশরাফিকে নিয়ে দুটি ঘটনার কথা উল্লেখ করেছেন যা সদ্য রাজনীতিতে আসা এই ক্রিকেটার সম্পর্কে নতুন করে ভাবতে শেখায়। নেতা হবার মত সব গুণাবলীই যে তার মধ্যে বিদ্যমান তারই সাক্ষী দেয় এই পোস্ট।

ব্রিটেনে বসবাসকারী ওই আইনজীবী লিখেছেন, মাশরাফি অস্ট্রেলিয়া গিয়েছিলেন খেলতে। খেলার ফাঁকে কোনো এক ছুটির দিনে গ্রাম দেখতে গিয়েছেন। এলাকাটি দেখতে দেখতে বাংলাদেশের ক্রিকেটের প্রাণ মাশরাফি ভাবছিলেন, ‘ইশ! নড়াইলকেও যদি এইভাবে সাজিয়ে রাখতে পারতাম!’ দেশে ফিরে মাশরাফি তার আপনজনদের নিজের এই স্বপ্নের কথা জানান। আর কল্পনার ফানুস ছড়িয়ে দেন স্বপ্নভূক মানুষদের চোখে।

প্রসঙ্গত, নড়াইল -২ আসন থেকেই এবারের নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন মাশরাফি।

তবে এই ঘটনার প্রত্যক্ষ সাক্ষী নন নিঝুম মজুমদার। সম্প্রতি এক আত্মীয়ের কাছ থেকে জেনেছেন ঘটনাটি। তবে দ্বিতীয় ঘটনাটির সাক্ষী তিনি নিজেই।

সেখানে তিনি বলেন, ‘আজ থেকে প্রায় ৮/৯ বছর আগে আমি গিয়েছিলাম অল সেইন্টসে এক বড় ভাইয়ের বাসায়। বড় ভাইয়ের রুমে গিয়ে দেখি সে রুমের বাংক বেড়ে সদ্য দেশ থেকে ফেরা এক তরুণ শুয়ে রয়েছেন। আজ যতদূর মনে পড়ে, ছেলেটির ডাক নাম ছিলো সেন্টু। ভালো নাম অলক দাস বা তেমন কিছু। ...আমরা ঘরে বসে কোনো এক প্রসঙ্গে আমাদের ক্রিকেটের গল্প তুলি। ক্রিকেটের গল্প মানেই মাশরাফি। ফলে মাশরাফির প্রসঙ্গ এসেই যায়। সেই নড়াইলের তরুণ আমাদের গল্প শুনে পেছন থেকে বলে ওঠেন, দাদা, মাশরাফি আমার জন্য তো মানুষ নন, তিনি ভগবান।’

ওই তরুণ জানান, ইংল্যান্ডে আসার জন্য তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ২৮ দিনের জন্য প্রায় ১০ লাখ টাকা রাখার প্রয়োজন ছিল। কিন্তু তার কাছে অত টাকা ছিল না। তখন অন্য এক বন্ধুর রেফারেন্স দিয়ে মাশরাফির সঙ্গে দেখা করেন ওই তিনি। আর তার কথা শুনে মাশরাফি একটি শব্দও না বলে আমাদের প্রিয় ক্রিকেটার তাকে পুরো টাকাটা দিয়ে দেন, ২৮ দিনের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে। এই ব্যাংক স্টেটম্যান্ট দেখিয়েই সেদিন ইংল্যান্ডে এসেছিলেন ওই তরুণ। তাই মাশরাফি তার কাছে বড় মাপের কোনো ক্রিকেটার নন, একজন দেবতা।

মাশরাফির সেই দানের কথা উল্লেখ করে সেদিন শব্দ করে কাঁদছিলেন ওই ছেলে।

তবে নিঝুম মজুমদার মনে করেন, ‘এসব ছোট ছোট গল্প নড়াইলে গেলে বহু শোনা যায়। ছোট ছোট ভালোবাসা হয়ে মাশরাফির এমন অনেক অলীক সৌন্দর্যের গল্প ছড়ায়ে রয়েছে যে, কেউ আর এগুলোকে তেমন বড় করে ভাবেন না। তারা মনে করেন মাশরাফি মানেই তো এমন। মাশরাফি মানেই কারণহীন একটা ভালোবাসার গল্প। মাশরাফি মানেই একটা দুরন্ত পাগল আর স্বপ্নভুক যুবকের গল্প।’

এরপর তিনি মাশরাফির রাজনীতিতে আসার খবর নিয়ে সম্প্রতি ফেসবুকে তার বিরুদ্ধে যে ঘৃণ্য প্রচারণা চলছে তার তীব্র নিন্দা জানান এই ব্লগার।

তিনি মাশরাফির রাজনীতিতে আসাকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘মাশরাফির মত এমন একজন বাংলাদেশের রাজনীতিতে আসবেন, এটি শুধু আমাকে আবেগে আপ্লুত করে না বরং বুকের ভিতরে ঠিক প্রথম প্রেমের মত এক ধরনের আশা জাগায়, এক ধরনের আকাঙ্খা জাগিয়ে তোলে। মনে হয়, এই দেশকে নিয়ে এখনো হতাশ হবার কিংবা ভেঙে পড়বার কিচু নেই। কেননা... এখনো মাশরাফিরা এই দেশে বেঁচে রয়েছেন।’

সূত্র: ফেসবুক

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে