আপডেট : ১৭ অক্টোবর, ২০১৮ ১৯:৩৮

জিম্বাবুয়েকে মোকাবেলায় কেমন প্রস্তুতি টাইগারদের?

অনলাইন ডেস্ক
জিম্বাবুয়েকে মোকাবেলায় কেমন প্রস্তুতি টাইগারদের?

এশিয়া কাপ শেষে মাত্র ১৬-১৭ দিনের বিশ্রাম পায় টাইগাররা। তাঁর মধ্যে অনেক খেলোয়াড় আবার জাতীয় ক্রিকেট লিগ (এনসিএল) খেলায় ব্যস্ত ছিলেন। ব্যস্ত সময়ের মধ্যেই আসন্ন জিম্বাবুয়ে সিরিজকে সামনে রেখে গত সোমবার থেকেই প্রস্তুতি ক্যাম্প শুরু করে জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা। লক্ষ্য টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ জয়। সেটাও জিম্বাবুয়েকে হোয়াইট ওয়াশ করে। হোয়াইট ওয়াশের লক্ষ্য থাকলেও জিম্বাবুয়েকে সমীহ করছেন দলের সবাই। তাই পঁচা শামুকে পা কাটতে নারাজ দলের প্রত্যেকে।

ক্যাম্পের শুরুর দিন ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে অনুশীলন করে টাইগাররা। একদল শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের ইনডোরে অনুশীলন করছে। অন্য আরেক দল বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশ ও সুনিল যোশির সঙ্গে অনুশীলন করেছেন। ব্যাটসম্যানরা দীর্ঘ সময় নেটে প্র্যাকটিস করেছেন। লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, ইমরুল কায়েস, ফজলে মাহমুদ রাব্বি, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, আরিফুল হক ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দীনরা সবাই নিজেদের শেষ মুহূর্তে ঝালিয়ে নিচ্ছেন।

তবে এবার জাতীয় দলের ক্যাম্পে এসেছে কিছু নতুনত্ব। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানের একটা বড় সমস্যা সিঙ্গেলস বের করতে না পারার সমস্যা। সেই সমস্যা সমাধানে নেমেছে এবার বাংলাদেশ। ব্যাটিং কোচ নেইল ম্যাকেঞ্জির নেতৃত্বে টপ অর্ডার ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা ‘রানিং বিটুইন দ্যা উইকেট’ প্র্যাকটিস শুরু করেছেন জিম্বাবুয়ে সফরকে সামনে রেখে।

শুধু তাই নয় খেলোয়াড়দের মনোবল বৃদ্ধির জন্য সিরিজ চলাকালীন সময়ে থাকবেন একজন মনোবিদ। ৬-৭ দিন বাংলাদেশ দলের সঙ্গে থাকবেন তিনি। ছোট ছোট কয়েকটি সেশনে খেলোয়াড়রা যোগ দিবেন তাঁর সঙ্গে। 

এশিয়া কাপের ভুলগুলো নিয়েই টাইগাররা কাজ করছে এবার। যদিও এশিয়া কাপের মতো ওপেনিং সমস্যাটা থেকেই যাচ্ছে এই সিরিজেও। তামিম থাকছেন না। তাঁর অবর্তমানে লিটন দাসের ওপর থাকবে গুরুদায়িত্ব। এশিয়া কাপের ফাইনালে শতক ও ঘরোয়া লিগের ডাবল সেঞ্চুরি তাঁর মনোবল বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে। তবে তাঁর সঙ্গী কে হবেন সেটা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। নাজমুল হোসেন শান্ত নাকি ইমরুল কায়েস নাকি সেই মেহেদী হাসান মিরাজই ওপেন করবেন? ধারণা করা হচ্ছে ইমরুলকে সুযোগ দেওয়া হতে পারে জিম্বাবুয়ে সিরিজে।

সাকিব আল হাসানও নেই দলে। তাই তাঁর অভাবটা পূরণ করার দায়িত্ব পড়বে মিরাজের ঘারে। বোলিংয়ে সাকিবের অভাবটা কিছুটা দূর করতে পারলেও ব্যাটিংয়ে তিনি ধারাবাহিক নন। বোলিংয়ের পাশাপাশি জিম্বাবুয়ে সিরিজে ব্যাটিংয়ের দিকটাতেও নজর দিতে হবে তাঁকে।

সব মিলিয়ে সামনের সিরিজকে ঘিরে বাংলাদেশের প্রস্তুতি বেশ ভালো। তবে নতুনদের জন্য এই সিরিজ ভালো করার জায়গায়। সবচেয়ে বড় সুযোগ বলা চলেও।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে