আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৫:৫৮

মমিনুল নয়, সুযোগটা নাজমুলই পাচ্ছেন!

অনলাইন ডেস্ক
মমিনুল নয়, সুযোগটা নাজমুলই পাচ্ছেন!

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচের পুরোটা সময়ই দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামের প্রেসবক্সের ডাইনিংয়ে বসে থাকতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। যেখান থেকে খেলাটাও দেখা যায়। কেন এবং কী কারণে বসেছিলেন, সেটি অবশ্য তাঁকে জিজ্ঞেস করার কোনো দরকারই ছিল না। ২০ সেপ্টেম্বরের ম্যাচে মুখোমুখি হওয়ার আগে বাংলাদেশ সম্পর্কে সবশেষ ধারণা নিতেই মনোযোগ দিয়ে খেলা দেখছিলেন আফগানিস্তানের কোচ ফিল সিমন্স।

ম্যাচের আগে আফগানিস্তানকেও শেষবারের মতো খতিয়ে দেখার ব্যাপারটি বাদ যায়নি বাংলাদেশ দলের হেড কোচ স্টিভ রোডসের রুটিন থেকেও। কালকের শ্রীলঙ্কা-আফগানিস্তান ম্যাচ দেখতে তিনিও হাজির স্টেডিয়ামে। যে কারণে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায় দুবাই স্পোর্টস সিটির আইসিসি একাডেমি মাঠে বাংলাদেশ দলের নির্ধারিত অনুশীলনেও ছিলেন না এই ইংলিশ কোচ। যেখানে থাকার চেয়ে তাঁর ম্যাচ জেতার অঙ্ক সাজানোই ছিল সবচেয়ে জরুরি। এখন তো আবার সেই অঙ্কে গোলমালও লেগে গেছে অনেক।

গোলমাল লাগার আশঙ্কা আগে থেকেই ছিল। তামিম ইকবালের ডান হাতের আঙুল ফুলে থাকায় দল গঠনের সময়ই বিকল্প ওপেনার হিসেবে নাজমুল হোসেন শান্তকে অন্তর্ভুক্ত করা হয় ১৫ জনের স্কোয়াডে। এরপর বাঁ হাতের কনিষ্ঠ আঙুলের চোটের কারণে যখন সাকিব আল হাসানের খেলাও অনিশ্চিত হয়ে পড়তে পারে বলে মৃদু আলোচনা, তখন ঝুঁকিহীন থাকতে একজন বাড়িয়ে স্কোয়াড করা হয় ১৬ জনের। দলে ঢুকে পড়েন মাত্রই কিছুদিন আগে আয়ারল্যান্ড সফরে ‘এ’ দলের হয়ে দেশের বাইরে ‘লিস্ট এ’ ক্রিকেটে কোনো বাংলাদেশির সর্বোচ্চ ১৮২ রানের ইনিংস খেলা মমিনুল হক।

বিকল্প তৈরি রাখতেই দলের সঙ্গে নিয়ে আসা তাঁকে। যাতে প্রয়োজনে কাজে লাগানো যায়। বিশেষত সাকিব আল হাসানের সমস্যা গুরুতর হলেই শুধু তাঁকে তিন নম্বরে খেলানোর ভাবনা উঁকি দিতে পারত। না হলে খুব সম্ভবত একদমই নয়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডের আগের দিন তিনি নিজেও বোধহয় সহসাই ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পুনর্জীবনের আশা করেননি। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে সেরকম কিছুর সম্ভাবনাও জাগত না। কিন্তু গোলমালটা বেঁধে গেল তামিম ইকবালের কবজি ভেঙে যাওয়াতেই। দারুণ ছন্দে থাকা তামিমের জায়গায় এখন আরেকজনকে দিয়ে ওপেন করাতে তো হবেই।

কে হবেন সেই ওপেনার? লিটন কুমার দাশের সঙ্গে তাহলে জুটি বাঁধবেন কে? বিকল্প ওপেনার হিসেবে আসা নাজমুল নাকি আয়ারল্যান্ড সফরে ‘এ’ দলের হয়ে একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ওপেন করে আসা মমিনুল? নাকি শ্রীলঙ্কা ম্যাচে মিডল অর্ডারে নেমে ৬৩ রানের ইনিংস খেলা মোহাম্মদ মিঠুন? সম্প্রতি আয়ারল্যান্ডে সিরিজ নির্ধারণী টি-টোয়েন্টি ম্যাচের ভাগ্য ওপেন করতে নেমে ৩৯ বলে ৮০ রানের বিধ্বংসী ইনিংসেই নির্ধারণ করে দিয়েছিলেন এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। ঘরোয়া ক্রিকেটেও ওপেনার হিসেবে অনিয়মিত নন। আর শ্রীলঙ্কা ম্যাচেও তাঁকে একরকম ওপেনই করতে নামতে হয়েছিল। প্রথম ওভারেই টানা দুই বলে লিটন আর সাকিবকে হারানোর পর তামিমকেও হাসপাতালে যেতে হয় হাসপাতালে। অর্থাৎ দ্বিতীয় ওভার শেষেই কার্যত ৩ উইকেট হারিয়ে বসে বাংলাদেশ।

তখন মাহমুদ উল্লাহর আগেই পাঁচ নম্বরে নামিয়ে দেওয়া হয় মিঠুনকে। মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে বড় জুটিতে আস্থার প্রতিদান দেওয়া এই তরুণ প্রয়োজনে ওপেন করার জন্যও নিজেকে তৈরি রাখছেন, ‘এখন পর্যন্ত  তো জানি না যে পরের ম্যাচে আমাকে কোথায় ব্যাটিং করতে হবে। তবে যদি দলের প্রয়োজনে ওপেন করতে হয় আমাকে, তাহলে নিজেকে সেভাবেই প্রস্তুত করব।’ যদিও দল সূত্রের খবর, ওপেন করার মানসিক প্রস্তুতি তাঁকে নিতে হবে না। সেই প্রস্তুতি নিয়ে মমিনুলেরও আপাতত ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পুনর্জন্মের আশার খবর নেই। তাহলে তো বাকি থাকলই একজন। তামিম আর লিটনের সঙ্গে বিকল্প ওপেনার হিসেবে দলে সুযোগ পাওয়া নাজমুল।

তরুণ এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানকেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে লিটনের সঙ্গে ওপেন করতে দেখার ব্যাপারটি একরকম নিশ্চিতই করে দিলেন বাংলাদেশ দলেরই এক সদস্য, ‘নিশ্চিত থাকতে পারেন নাজমুলই খেলবে। কোচ (স্টিভ রোডস) ওকে খেলাবেনই।’ এই সুযোগে খেলাবেন কারণ চন্দিকা হাতুরাসিংহের যেমন ভীষণ পছন্দের ব্যাটসম্যান ছিলেন সৌম্য সরকার, তেমনি রোডসেরও গুড বুকে উঠে থাকা নামটি নাজমুলের। সাবলীল ব্যাটিং ও পরিশ্রম করার মানসিকতা দিয়ে কোচের সুনজরে থাকা নাজমুলের তামিমের জায়গায় খেলার দৌড়ে এগিয়ে যাওয়ার আরেকটি কারণ ওপেনিংয়ে ডানহাতি-বাঁহাতি কম্বিনেশনও। তামিম না থাকলেও তাঁকে দিয়ে সেটি অটুটও রাখা যাচ্ছে।

সে ক্ষেত্রে ওয়ানডে অভিষেকের দোরগোড়ায়ই দাঁড়িয়ে আছেন নাজমুল। যাঁর টেস্ট অভিষেকও হয়েছিল এ রকম দৈবচক্রেই। ২০১৭-র নিউজিল্যান্ড সফরে তাঁকে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল বাংলাদেশ দলের ড্রেসিংরুমের পরিবেশের সঙ্গে অভ্যস্ত  হতে। পরে চোট-আঘাত এমন মহামারি আকার ধারণ করেছিল যে ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে তাঁকে খেলিয়েই দিতে হয়। এখন আরো পরিণত সেই নাজমুল ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি নিবেদন দিয়ে ঢুকে পড়েছেন রোডসের আফগানিস্তান ম্যাচ পরিকল্পনায়ও!

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে