আপডেট : ১৬ মে, ২০১৮ ২০:৩৫

মন্ত্রীমশাইয়ের রাগের খেসারত দিতে হচ্ছে প্রীতির পাঞ্জাবকে!

অনলাইন ডেস্ক
মন্ত্রীমশাইয়ের রাগের খেসারত দিতে হচ্ছে প্রীতির পাঞ্জাবকে!

ইন্দৌরের হোলকার স্টেডিয়ামে তাঁকে রাজকীয় অভ্যর্থনা জানানো হয়নি। সেই কারণে ক্রুদ্ধ হয়ে মধ্যপ্রদেশের শিক্ষামন্ত্রী বিজয় শাহ স্টেডিয়ামমুখী একটা রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দিলেন। তাঁর রোষানলে আপাতত মধ্যপ্রদেশ ক্রিকেট সংস্থা ও আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজি কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। প্রীতি জিন্তার দল নিজেদের বেশ কিছু হোম ম্যাচ ইন্দৌরেই খেলছে।

ঘটনার সূত্রপাত অবশ্য সোমবার। কিংস ইলেভেন পঞ্জাব ও কলকাতা নাইট রাইডার্সের ম্যাচ ছিল ইন্দৌরের হোলকার স্টেডিয়ামে। সেই স্টেডিয়ামে প্রবেশের মুখেই আটকে দেওয়া হয়েছিল শিক্ষামন্ত্রীকে। মূল ফটকের কয়েক মিটার থেকে নিজের ভিআইপি সিট পর্যন্ত হেঁটে যেতে হয়েছিল। গলদঘর্ম হতে হয়েছিল নিজের সিট খুঁজে পাওয়ার জন্য।

পরে তিনি দেখেন, জেলা স্তরের প্রশাসকরাও তাঁর থেকে ভাল সিট পেয়েছেন। উপরন্তু তাঁদের গাড়ি স্টেডিয়ামের ভিতরেও প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয়। এতেই ক্রুদ্ধ হন শিক্ষামন্ত্রী। সঙ্গে সঙ্গেই ফোন করেন ইন্দোরের মেয়রকে। তিনি স্পষ্ট জানান, ক্যাবিনেট মন্ত্রীর ক্ষেত্রে প্রোটোকল ভাঙা হয়েছে।

এর পরেই একের পর এক কোপ পড়ে ইন্দৌর স্টেডিয়ামের উপরে। হোলকার স্টেডিয়ামের ভিআইপি পার্কিং হিসেবে ব্যবহৃত হতো পার্শ্ববর্তী একটি স্কুলের ময়দান। সেই ময়দান থেকেও ভিআইপি পার্কিং সরানোর নির্দেশ এসেছে। রাজ্যস্তরের প্রশাসক ও শিক্ষা দফতরকে বলা হয়, নিকটবর্তী বিবেকানন্দ বিদ্যালয়ের মধ্যে দিয়ে অনৈতিকভাবে যেভাবে স্টেডিয়াম রাস্তা তৈরি করা হয়েছে, তা যেন তড়িঘড়ি বন্ধ করে দেওয়া হয়। মঙ্গলবার বিদ্যালয় পরিদর্শনে গেলে সেই রাস্তা বন্ধ রাখা হয়।

প্রসঙ্গত, আইপিএল আয়োজন করা নিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি ও স্থানীয় প্রশাসনের মধ্যে শুরু থেকেই চাপান উতোর চলছিল। এমনকী, কিংস মালকিন প্রীতি জিন্টাও পরে স্বীকার করে নিয়েছিলেন, স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে তাঁদের বেশ কিছু বিষয়ে দূরত্ব রয়ে গিয়েছে। যা সমাধান করা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। শহরের মেয়র মালিনী গৌড় বলেছেন, তাঁরা ফ্র্যাঞ্চাইজির পক্ষ থেকে কোনও রকম কমপ্লিমেন্টারি টিকিট নেননি।

এর আগে মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চহ্বান আইপিএল মাঠে স্বল্পবসনা চিয়ারলিডারদের বিপক্ষে প্রকাশ্যেই মুখ খুলেছিলেন। ২০১৭ সাল থেকে হোলকার স্টেডিয়ামে আইপিএল ম্যাচে প্রতিটি টিকিটের উপরে ২০ শতাংশ বিনোদনমূলক কর ধার্য করা হয়।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে