আপডেট : ১০ এপ্রিল, ২০১৮ ০৮:২২

সাকিবের বিষে নীল রাজস্থান

অনলাইন ডেস্ক
সাকিবের বিষে নীল রাজস্থান

আইপিএল শুরুর আগে এমনটাই ধারণা করেছিলেন ক্রিকেট বিশ্লেষকরা। হায়াদরাবাদের বোল্লিং লাইনআপের কাছে নাস্তানাবুদ হতে হবে বেশিরভাগ দলকে। আর সেই নিজেদের প্রথম ম্যাচে সেই কথারই প্রমাণ দিলেন সাকিব-রশিদরা। সাকিবদের নিয়ন্ত্রিত ও কিপ্টে বোলিংয়ে ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১২৫ রান করতে সক্ষম হয় দুই বছর পর আইপিএলে ফেরা রাজস্থান। 

তবে আজ আইপিএলে ম্যাজিক দেখালেন সাকিব। ব্যাটসম্যানদের আটকে রাখলেন তাঁর কিপটে বোলিংয়ে। শুরুর দিকে সাকিবের বোলিংয়ের সময় রান আটকেই ছিল। কিন্তু এরপরেও ওভারে সাত রান করে তুলে নিচ্ছিল রাজস্থান। কোনো কিছুতেই আটকানো যাচ্ছিলো না তাদের। এমনকি রশিদ খানও ব্রেকথ্রু এনে দিতে পারছিলেন না। সেই সুযোগে ত্রিপাঠি ও সঞ্জু স্যামসন ভালোভাবেই রাজস্থানের রানের চাকা সচল রাখছিলেন। এরপর ম্যাচের ১৪তম ওভারে সাকিবকে আনলেন অধিনায়ক উইলিয়ামসন।  প্রথম তিন ওভারে সাকিব দিয়েছিলেন ২০ রান। কিন্তু নিজের শেষ ওভারে এসেই এনে দিলেন ব্রেকথ্রু। সাঝঘরে ফেরালেন দুই সেট ব্যাটসম্যানকে। প্রথমে ত্রিপাঠিকে পান্ডের ক্যাচে এবং এক বল পরেই সাঞ্জু স্যামসনকে রশিদ খানের ক্যাচে আউট করলেন সাকিব। ত্রাতা হয়ে এলেন সাকিব। দেখালেন নিজের ম্যাজিক।

এরপর আর এগোতে পারেনি রাজস্থান। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট যেমন পড়ছিল, তেমনি রান তোলার গতিও কমে আসছিল তাদের। অবশেষ ১২৫ রানের বেশি যেতে পারেনি তারা। রাজস্থানের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৯ রান করেন সঞ্জু। এছাড়া কেউই এমন কিছু করতে পারেননি। আর রেকর্ড অর্থে কেনা বেন স্টোকস ছিলেন ব্যর্থ। অথচ তাঁর ওপর অনেক আশা ছিল রাজস্থানের।

হায়দরাবাদের হয়ে সাকিব ছাড়াও দুই উইকেট নেন সিদ্বার্থ কউল। এছাড়া রশিদ, ভুবনেশ্বর ও স্ট্যানলিক একটি করে উইকেট নেন। আর চার ওভারে ২৩ রানের বিনিময়ে ২ উইকেট শিকার করলেন হায়দরাবাদের সেরা বোলার সাকিব। তাঁর ইকোনোমি ৫.৭৫।

১২৬ রান তাড়া করতে প্রথম ওভারেই মারকুটে ধাওয়ানকে ডাগআউটে ফেরেনোর সুযোগ আসে রাজস্থানের। ধবল কুলকার্নির প্রথম ওভারের শেষ বলে স্লিপে লোপ্পা ক্যাচ দিয়ে বসেন সানরাইজার্সের মারকুটে ওপেনার শিখর ধাওয়ান। তখন তিনি ০ রানে ব্যাটিং করছিলেন।

এরপর ঋদ্ধিমানকে দ্রুত ডাগআউটে ফেরালেও ধাওয়ানকে আটকাতে পারেনি রয়্যালসের বোলিং আক্রমণ। রান তাড়া করতে নেমে ১৩টি চার ও একটি ছয় মেরে ৫৭ বলে৭৭ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন ধাওয়ান। ক্যাচ ফেলে হায়দরাবাদের ইনিংসে প্রথম ওভারের ম্যাচ হাতছাড়া করেন রাহানে।

রাহুল দ্রাবিড়ের পর ভারতীয় ক্রিকেটে স্লিপ পজিশনে রাহানে ধারাবাহিক ভাবে সফলই শুধু নয় কোহলির প্রথম পছন্দও বটে। সেই রাহানে অবশ্য রাজস্থানের জার্সি গায়ে চাপিয়ে প্রথম ম্যাচে নিজের ফেভারিট পজিশনে দাঁড়িয়ে দাগ কাটতে পারলেন না।

অন্যদিকে অপর অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন প্রথম ম্যাচে দুরন্ত ফিল্ডিং করে বিপক্ষকে ১২৫ রানের গণ্ডিতে বেধে রাখেন। রান তাড়া করতে নেমে ব্যাট হাতে অপরাজিত ৩৬ রানের ইনিংস খেলার পাশাপাশি এদিন রয়্যালসদের ব্যটিংয়ের প্রথম ওভারের শেষ বলে দুরন্ত রান আউটে ডার্সি শর্টকে ডাগআউটে ফেরান উইলিয়ামসন। এরপর স্ট্যানলাকের বলে দুরন্ত ক্যাচে মারকাটারি ব্যাটসম্যান বেন স্টোকসে পাঁচ রানে আউট করে ডাগআউটের রাস্তা দেখান।

একই ম্যাচে ক্যাচ ফেলে তাই খলনায়ক রাহানে, উল্টো পথে হেঁটে নায়ক উইলিয়ামসন। দিনের শেষে তাই ক্যাচলাইন একটাই, ক্যাচ ফসকালে ম্যাচ ফসকাতেই হবে। আইপিএলে নো সেকেন্ড চান্স!


বিডিটাইমস৩৬৫/জামি

উপরে