আপডেট : ১৯ মার্চ, ২০১৮ ২১:১৭

ক্রিকেট বিশ্বের নতুন ‘চোকার’ বাংলাদেশ?

অনলাইন ডেস্ক
ক্রিকেট বিশ্বের নতুন ‘চোকার’ বাংলাদেশ?

ফাইনালে হারের পর বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বলেছিলেন, ‘আমরা এমন তিন-চারটা ম্যাচ হেরেছি।’ সামনে থাকা এক সাংবাদিক মনে করিয়ে দেন, ‘তিন-চারটা নয়, আমরা হেরেছি মোট পাঁচটা ফাইনাল।’ সাকিবের অভিব্যক্তির পরিবর্তন হয়। একটু চমকে উঠতে গিয়েও নিজেকে সামলে নেন এই অলরাউন্ডার।

আরো একটি ফাইনাল, আরো একটি পরাজয়। ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল মানেই যেন অমোঘ নিয়তিতে লেখা বাংলাদেশের পরাজয়। না হয় গতকাল রোববার এমন চাপের মধ্যে শেষ বলে ছয়! এমনটা কয়টা ম্যাচেই হয়? এমন পরিস্থিতিতে জয়টা বোলারেরই হয়। কিন্তু গতকাল হয়নি। ফাইনালে হারটা যেন বাংলাদেশের নিয়তি।

শুধু কি গতকালই শেষ? এর আগেও চারবার ত্রিদেশীয় সিরিজ বা কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠে প্রতিবারই টাইগারদের ফিরতে হয়েছে খালি হাতে। ২০০৯ সালে জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ফাইনালে খেলেছিল বাংলাদেশ। ২০১২ সালের এশিয়া কাপ, ২০১৬ সালের এশিয়া কাপের টি-টোয়েন্টি ফাইনাল—প্রতিবারই জয়ের কাছাকাছি গিয়েও ভাগ্যদেবী বিমুখ করে টাইগারদের।

২০১৮ সালেই দুবার ফাইনালেই টাইগার শিবির পরাজয়ের তেতো স্বাদ পায়। জানুয়ারিতে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজে ফেভারিট হিসেবেই ফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু শ্রীলঙ্কা টিম, যারা ফাইনালে উঠবে কি না, এ ব্যাপারেই ছিল সন্দিহান—তাদের কাছেই হারতে হয় টাইগার শিবিরের।

এ সিরিজের পরপরই শ্রীলঙ্কার মাটিতে শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ ও ভারতের টি-টোয়েন্টি নিদাহাস ট্রফি। যদিও এ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের প্রত্যাশা কেবলই ভালো করার মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। কেননা টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে টাইগার শিবিরের ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা শ্রীলঙ্কা ও ভারতের তুলনায় নগণ্য। তবে লঙ্কানদের দুবার পরাজিত করে সাকিব শিবির যখন ফাইনালে পৌঁছে যায়, সবাই আশায় বুক বেঁধেছিল এবার হয়তো কাটবে ফাইনাল-খরা।

গতকাল ম্যাচে তেমন প্রত্যাশায়ই মাঠে নেমেছিল টাইগার শিবির। টস হেরেও অধিনায়ক আশাহত হননি। প্রথমে ব্যাট করে ভালো টার্গেট ছুড়ে দিয়ে ম্যাচে ভালো কিছু করার প্রত্যাশা ছিল টাইগার অধিনায়কের। নাটকীয় এই ম্যাচের উত্থান-পতনের শেষ অবধি লড়াই চালিয়েও শেষ বলে ম্যাচ হয়ে যায় হাতছাড়া। নাহ, এবারও হলো না। পঞ্চমবারের মতো ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের ফাইনালে হেরে ভগ্ন-মনোরথে পরাজয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় টাইগারদের।

তাই বলতেই হয়, বাংলাদেশ যেন আরেক চোকার দল। যে তকমাটা দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটের সঙ্গী, তা এখন যেন ধীরে ধীরে বাংলাদেশের ক্রিকেটে যুক্ত হচ্ছে। 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে