আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৪:০৪

আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টি কেন বন্ধ হবে?

অনলাইন ডেস্ক
আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টি কেন বন্ধ হবে?

সম্প্রতি আলোচনায় আসছে সেদিন বেশি দূরে নয়, যেদিন টি-টোয়েন্টিই হয়ে যেতে পারে ক্রিকেটের একমাত্র ফরম্যাট। এমন শঙ্কা প্রকাশ করলেন ইংল্যান্ডের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জস বাটলার। ছোট এই ফরম্যাট অন্য ফরম্যাটগুলোকে দ্রুতই ধ্বংস করবে বলে মনে করছেন তিনি। 

তিনি মনে করেন, ক্রিকেটের এই সংক্ষিপ্ত ফরম্যাট ওয়ানডে ও টেস্টের ভবিষ্যত্ একটা ঘোর অনিশ্চয়তায় ফেলে দিচ্ছে। তাই বাটলারের ভয়-ক্রিকেট একদিন শুধুই টি-টোয়েন্টির হয়ে যাবে মনে হয়। টি-টোয়েন্টির আধিপত্যের কারণে এরই মধ্য আবেদন হারাচ্ছে ওয়ানডে ও টেস্ট ক্রিকেট। জস বাটলার এই সংকটকে দেখছেন আরো গভীরভাবে। তার মতে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট অন্য দুই ফরম্যাটকে দিন দিন ‘হত্যা’ করছে। ঠিক তার কিছুদিন পর তার বিপরীত গুঞ্জন। বাদ দেয়ার পরামর্শ ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাট।

ইংলিশ কোচ আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিকে ‘অপ্রয়োজনীয়’ ও ‘ক্লান্তিকর’ সূচি বলে এটি বন্ধের পরামর্শ দিয়েছেন।
ট্রেভর বেলিসের সঙ্গে একমত নন নিউজিল্যান্ড কোচ মাইক হেসন। তবে কিউই কোচ ক্লান্তি-ইস্যুর প্রতি সম্মান জানিয়েও আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি চালিয়ে যাওয়ার পক্ষেই। এর কারণ হিসেবে তিনি সামনে নিয়ে এসেছেন, এর জনপ্রিয়তা ও এর আয়োজন থেকে অর্থ উপার্জনের বিষয়টি।

নিজের দেশের উদাহরণই টেনেছেন হেসন, ‘আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি আয়োজন করে অনেক দেশের ক্রিকেট বোর্ডই প্রচুর রাজস্ব আয় করে। নিউজিল্যান্ডের কথাই ধরুন, আমাদের এখানে অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে একটি ম্যাচে ৩৫ হাজার দর্শক বিরাট ব্যাপার। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি কেন বন্ধ হবে?’

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি কেন অপ্রয়োজনীয় হতে যাবে? হেসনের প্রশ্ন। তিনি মনে করেন ‘ক্লান্তি’ ইস্যুটি গুরুত্বপূর্ণ হলেও সঠিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সেটি সমাধান করা সম্ভব। তিনি মনে করেন, আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি অনেক ক্রিকেটারের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের স্বাদ গ্রহণের সুযোগও, ‘অনেক ক্রিকেটার আছে, যারা কেবল টি-টোয়েন্টি খেলে। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির মধ্য দিয়ে এই সব খেলোয়াড়েরা আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির স্বাদ গ্রহণ করে।

অস্ট্রেলিয়াতে অনুষ্ঠানরত ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ইংল্যান্ড ২ রানের দুর্দান্ত এক জয় পাওয়ার পরে বেলিস হঠাৎ করেই আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি বন্ধ করে দেওয়ার কথা বলেন। তার মতে, এটি খেলোয়াড়দের জন্য ক্লান্তিকর। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটকে তিনি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগেই সীমাবদ্ধ রাখার কথা বলেন। তবে আইসিসি যেহেতু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজন করে, সে ক্ষেত্রে এই বৈশ্বিক আসরের আগের ছয় মাস আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি হতে পারে বলেও মত দিয়েছেন ইংলিশ ক্রিকেট কোচ।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/রাসেল

উপরে