আপডেট : ২৯ মার্চ, ২০১৬ ১৩:৪২

সেমিতে পিচই ফ্যাক্টর

স্পোর্টস ডেস্ক
সেমিতে পিচই ফ্যাক্টর

অস্ট্রেলিয়া ১৬০ করার পর আমি ভেবেছিলাম, এটাই যথেষ্ট। কিন্তু বিরাট কোহলির ব্যাটিং ছিল অসাধারণ। এমন কঠিন উইকেটে কোহলির এত পরিপূর্ণ ব্যাটিং, অসাধারণ! কোনো ঝুঁকিপূর্ণ শট ছিল না, শুধু সত্যিকারের ক্রিকেটীয় শট। ব্যাটিং দেখে মনে হচ্ছিল কাজটা বুঝি অনেক সহজ! তিনি বিশ্বের সেরা তিন ব্যাটসম্যানের একজন। তাঁর ব্যাটিং দেখাটাও ছিল দৃষ্টিসুখকর। অবশ্য কোহলি-ধোনি যেভাবে দৌড়ে রান নিয়েছেন সেটিও অবিশ্বাস্য।

আমার মনে হয়, স্টিভ স্মিথ কিছু ভুল করেছেন। তাঁর উচিত ছিল অ্যাডাম জাম্পাকে আরও আগে বোলিংয়ে আনা। জাম্পা দুটি ভালো ওভার করেছেন। কিন্তু স্মিথ তাঁকে আর বোলিং করাননি। হয়তো তিনি মনে করেছিলেন, কোহলি জাম্পাকে আক্রমণ করবেন। কিন্তু লেগ স্পিনারদের নিয়ে একটু ঝুঁকি নেওয়া উচিত বলে মনে হয়। তাঁরা উইকেটশিকারি, আপনাকে উইকেট এনে দেবেনই। এ টুর্নামেন্টে বোলিং বৈচিত্র্য দিয়ে জাম্পা আমাকে মুগ্ধ করেছেন। তবে ভারতের বোলিংও ভালো হয়েছে। অস্ট্রেলিয়া ১৩ ওভারেই ১০০ করার পরও ভারতের বোলাররা ম্যাচে ফিরে এসেছেন। শেষ ৭ ওভারে মাত্র ৬০ দিয়েছেন তাঁরা।

এবার শুরু হচ্ছে সেমিফাইনালের লড়াই। ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড সেমিফাইনালে কে ফেবারিট বলা কঠিন। টি-টোয়েন্টিতে কোনো দলকে ফেবারিট বলা আসলেই কঠিন। ম্যাচটি যদি ধীরগতির, ঘূর্ণি পিচে হয় তবে নিউজিল্যান্ডই এগিয়ে থাকবে। ওদের তিন স্পিনার ভালো ভূমিকা রাখবে। এই টুর্নামেন্টে ইংল্যান্ড স্পিনে ভালো করেনি, তাই স্পিনিং উইকেটে ওদের ঝামেলা হতে পারে। কিন্তু পিচ স্বাভাবিক হলে ইংল্যান্ডের সুযোগ আছে।

অন্য সেমিফাইনালেও পিচই মূল ভূমিকা রাখবে বলে মনে হয়। ভারতের কোনো পিচে যদি ওয়েস্ট ইন্ডিজ খেলতে পছন্দ করে সেটি ওয়াংখেড়ের উইকেট। ক্রিস গেইলের সেঞ্চুরিটা এখানেই। ইংল্যান্ডও এখানেই ২৩০ তাড়া করেছিল। কিছুদিন আগে ভারতের সঙ্গেই দক্ষিণ আফ্রিকা এক ওয়ানডেতে চার শর বেশি করে। এই মাঠ ভারতকে কিছু কঠিন সময় উপহার দিয়েছে। তাই ওদের উচিত পিচে যেন স্পিন থাকে, এটা নিশ্চিত করা; তাহলেই শুধু ভারত ফাইনালে যেতে পারবে। (সূত্র: প্রথম আলো)

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আইএম

 

 

উপরে