আপডেট : ২৫ মার্চ, ২০১৬ ২৩:১৮

এতদিন পর বল হাতে নিয়েও সফল গেইল!

স্পোর্টস ডেস্ক
এতদিন পর বল হাতে নিয়েও সফল গেইল!

তাঁর ব্যাটিং ম্যাচ জেতানোর এমন মোক্ষম অস্ত্র যে ক্রিস গেইলকে দিয়ে বোলিং করানোর দরকারই হয় না অধিনায়কের। করালেও করান লম্বা বিরতি দিয়ে। এজন্য কালেভদ্রে বোলিং করেন বললেও বাড়িয়ে বলা হয়। তাঁর একেকবার বল হাতে নেওয়ার মাঝে যে দুই বছরের ব্যবধান!

 শুক্রবার নাগপুরে দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচের আগে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে গেইল শেষবার বল হাতে নিয়েছিলেন ২০১৪ সালের ৩ এপ্রিল। সেটি ঢাকার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। সেই ম্যাচে অবশ্য মাত্র ১ ওভার বোলিং করে ৯ রান খরচায় কোনো উইকেট পাননি। আর যদি টি-টোয়েন্টির পুরো ৪ ওভারের কোটা বোলিংয়ের ব্যাপার বিবেচিত হয়, তাহলে সেটি আরো আগের ঘটনা।

 ২০১২ সালের ১০ ডিসেম্বর ৪ ওভারে ১৮ রান দিয়ে কোনো উইকেট না পাওয়াও ঢাকায়, বাংলাদেশের বিপক্ষে। ওই বছরের অক্টোবরে শ্রীলঙ্কা থেকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতে আশা ক্যারিবীয়রা বাংলাদেশের কাছে ওয়ানডে সিরিজ ৩-২ এ হারের জ্বালা জুড়িয়েছিল একমাত্র ২০ ওভারের ম্যাচটি জিতে। এর সোয়া ৩ বছর পর আবার তাঁকে দিয়ে ১ ওভারের বেশি বল করান ক্যারিবীয় অধিনায়ক ড্যারেন সামি। বল হাতে পেয়ে প্রথম ওভারেই অধিনায়ককে সাফল্য এনে দেন এ জ্যামাইকান। রাউল রুশোকে ক্যচ বানান সুলেমান বেনের। এরপর বিপজ্জনক ডেভিড মিলারকেও বোল্ড করা গেইল প্রোটিয়াদের ইনিংস ১২২ রানে আটকে রাখায় রাখেন বিরাট ভূমিকাও। নিজে ৩ ওভারে ১৭ রান খরচায় নেন ২ উইকেট। যা বোলার গেইলের সাফল্যও।

উপরে