আপডেট : ২১ মার্চ, ২০১৬ ১১:১২

বিদেশী গণমাধ্যমে তাসকিন-সানির নিষেধাজ্ঞা, ভারতীয় পত্রিকায় ব্যাঙ্গ

স্পোর্টস ডেস্ক
বিদেশী গণমাধ্যমে তাসকিন-সানির নিষেধাজ্ঞা, ভারতীয় পত্রিকায় ব্যাঙ্গ

অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের কারণে নিষিদ্ধ হয়েছেন বাংলাদেশের দুই বোলার তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানি। এ নিয়ে বাংলাদেশের মতো পুরো ক্রিকেট দুনিয়া জুড়েই গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে বিভিন্ন সংবাদ। বিশেষ করে তাসকিনের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে অনেকেই। অন্যদিকে, পশ্চিম বাংলার বেশকিছু সংবাদমাধ্যমে তাসকিন ও বাংলাদেশ ক্রিকেটকে নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে নেতিবাচক সংবাদ।

কলকাতার প্রভাবশালী দৈনিকআনন্দবাজার তাসকিন-সানির নিষেধাজ্ঞার খবরের সঙ্গে সঙ্গে তাদের জন্য ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের(আইসিসি) টেকনিক্যাল কমিটি গঠনের খবরও প্রকাশ করেছে।

তারা লিখেছে, ‘ইতিমধ্যেই তাসকিনের নির্বাসনের বিরুদ্ধে বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটি নেমে পড়েছে কাজে। সব নথিসহ আইসিসির কাছে জমা দেওয়ার কাজই চালাচ্ছে এই কমিটি। যাতে আইসিসি তাসকিনের নির্বাসন নিয়ে নতুন করে ভাবে। তাসকিনের সঙ্গে নির্বাসিত হয়েছেন দলের আর এক বোলার আরাফত সানিও। তবে তাঁকে নিয়ে কোনও আবেদনের পথে যাচ্ছে না বিসিবি। বাংলাদেশের এখন আসল লক্ষ্য তাসকিনই। পাশাপাশি ভবিষ্যতে যাতে প্লেয়ারদের বোলিং অ্যাকশন সমস্যা না হয় সেই জন্যও আরও একটি কমিটি তৈরি করবে বলে জানা গিয়েছে বিসিবি। যে কমিটি নজর রাখবে প্লেয়ারদের বোলিং অ্যাকশনের উপর। প্রয়োজনে সেটা শুধরে দেওয়া হবে।’

অন্যদিকে, একই রাজ্যের আরো দুইটি সংবাদ মাধ্যম কলকাতা ২৪X এবংএইসময় বাংলাদেশকে ব্যাঙ্গ করে নেতিবাচক খবর প্রকাশ করেছে। এইসময়ে প্রকাশিত ‘ বাংলাদেশের ২ বোলিং অস্ত্র ICC-তোপে ভোঁতা’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘সানি’র বোলিং অ্যাকশনে ত্রুটি ধরা পড়তে পারে, তা হয়তো ভেবেই রেখেছিল বাংলাদেশ বোর্ড। এমনিতেই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে বড় ব্যবধানে হেরে খানিকটা ব্যাকফুটে বাংলাদেশ। তারপর এই ধাক্কায় আরও বাড়লো বাংলাদেশের।’

কলকাতা ২৪X৭ ‘ফেসবুকে হাসির খোরাক বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রতিবেদনের পুরোটা জুড়েই বাংলাদেশ ক্রিকেট ও তাসকিন আহমেদকে নিয়ে একরম ব্যাঙ্গ করেছে। প্রতিবেদনের চুম্বক অংশে বলা হয়েছে,

‘বিশ্বকাপ বা এশিয়া কাপের মতো মঞ্চে বাংলাদেশ খেলার আগেই সে দেশের ক্রিকেটপাগল সমর্থকরা সোশাল মিডিয়ায় রীতিমতো ‘ব্যঘ্রগর্জন’ শুরু করে অহেতুক উত্তেজনার আঁচ বাড়ানোর প্রক্রিয়ায় নেমে পড়েন। ভারত বা পাকিস্তানের মতো দলের সঙ্গে খেলা থাকলে তো রক্ষে নেই। অশ্রাব্য-কুশ্রাব্য গালিগালাজ থেকে ফটোশপ করা ছবি সবই পোস্ট করেন তাঁরা। সচারচর বিশ্বের আর কোনও ক্রিকেট খেলিয়ে দেশের সমর্থকরা এর ধারকাছ দিয়েও যান না। কারণ এখন প্রত্যেকের কার্যকলাপই ফেসবুকে ফুটে ওঠে৷ বিশেষত ফেসবুক পেজ জনপ্রিয় হওয়ার পর থেকে।’

ভারতের শীর্ষ ইংরেজি সংবাদ মাধ্যম স্পোর্টসকিডাতে তাসকিনকে কেন্দ্র করেই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে, বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষায় তার প্রতি অবজ্ঞা করা হয়েছে যা প্রকাশ হয়ে যাওয়ার সাথে সাথে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে তাসকিন ও বাংলাদেশ।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, যে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে তাসকিনের বোলিংয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়, সেখানে কোন বাউন্স দেননি তাসকিন; তবে চেন্নাইতে পরীক্ষা দিতে গেলে, তিন মিনিটে নয়টি বাউন্স দিতে বলা হয় তাকে। কিন্তু এর পুরোটাই আইসিসির নিয়মবিরোধী। প্রতিবেদনে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের(বিসিবি) আইনজীবি ও পরামর্শক মুস্তাফিজুর রহমান খানের ফেসবুক পোস্টটিও প্রকাশ করেছে, যেখানে কেন তাসকিনের ‘নিষেধাজ্ঞা’ অবৈধ হবে না তার ব্যাখা দিয়েছেন এই বিসিবি কর্মকর্তা।

ভারতের আরেকটি ইংরেজি সংবাদমাধ্যম এনডিটিভিও ফলাও করে খবর প্রকাশ করেছে। নিষেধাজ্ঞার খবরের সঙ্গে সঙ্গে যাদের বিপক্ষে সোমবার খেলতে নামবে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচের খবরও লিখেছে। যেখানে অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভেন জানিয়েছেন, তাসকিন-সানি না থাকলেও খুব একটা ভুগবে না বাংলাদেশ। তাদের আরো ম্যাচ উইনার রয়েছে।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ওয়েবসাইটেও এসেছে তাসকিন-সানির নিষেধাজ্ঞার খবর। যেখানে বাংলাদেশ শিবিরে তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন অবৈধ ঘোষণা হওয়ায় বিস্ময় প্রকাশের কথা উঠে এসেছে। দলের কোচ চান্দিকা হাতুরুসিংহের কথাও বলা হয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘আমার কাছে ওর(তাসকিন) অ্যাকশনে কোন সমস্যা মনে হয়নি। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে সে গত এক বছর ধরে যেভাবে বল করে আসছে এভাবেই বল করেছে।’

সারা বিশ্বব্যাপী প্রকাশিত খবরের সঙ্গে বিসিবি কি পদক্ষেপ নিচ্ছে, বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা ক্ষোভে ফেটে পড়েছে, এসব খবর উঠে এসেছে পাকিস্তানের শীর্ষস্থানীয় দৈনিক ডনের পাতায়। সেখানে সোমবার শাহবাগে তাসকিন-সানিকে ফেরানোর ব্যাপারে এবং আইসিসির ‘ভুল’ সিদ্ধান্তের ব্যাপারে মানববন্ধনের খবরও প্রকাশ করা হয়েছে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে