আপডেট : ১৭ মার্চ, ২০১৬ ২২:২২

উদ্দাম জীবনই তাহলে বিধ্বংসী গেইলকে বের করে আনে!

স্পোর্টস ডেস্ক
উদ্দাম জীবনই তাহলে বিধ্বংসী গেইলকে বের করে আনে!

আইপিএলের সূত্রে ক্রিকেট আর রূপালি জগতের তারকারা মিলেমিশে এমন একাকার হয়ে যান যে কেউই আর সেভাবে কারো অচেনা নন। ক্রিস গেইলেরও তাই বলিউডি তারকাদের সঙ্গে চেনাজানা কম নয়। কারো কারো সঙ্গে আলাপ-পরিচয়ের গণ্ডি পেরিয়ে সম্পর্কটা এমন জায়গায়ও পৌঁছে গেছে যেখানে তাঁর সাফল্যে অনেককে উদ্বেলিত হতেও দেখা যায়। এই যেমন দেখা গেল অমিতাভ বচ্চনকেই।

মুম্বাইতে বুধবার (১৬ মার্চ) রাতে গেইলের বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে মন্ত্রমুগ্ধ ‘বিগ বি’ আর চুপ থাকতে পারলেন কই! শুটিংয়ের কাজে দিল্লিতে থাকা এ কিংবদন্তি সেখান থেকেই টুইট করে বসেন, ‘ক্রিস গেইল তুমি অবিশ্বাস্য! মুম্বাইতে না থাকার কারণে তোমার সঙ্গে দেখা হল না। তোমার গলায় তাই আমার গানও শোনা হল না। তবে ম্যাচটি দেখেছি। ওহ, দারুণ!’ গেইলের ধ্বংসাত্মক ব্যাটিংয়ে ভারতের সর্বকালের অন্যতম সেরা এ অভিনেতা কতটা মজে গিয়েছিলেন, সেটি বোঝাতে তাঁর ওই টুইটই যথেষ্ট।

গেইলও জবাব দিয়েছেন এভাবে, ‘আমরা অবশ্যই দেখা করে নেব।’ আইপিএলে খেলার কারণে বছরের একটি নির্দিষ্ট সময়ে তাঁকে প্রায় মাস দুয়েক ভারতে থাকতে হয়। তখন বলিউডের তারকাদের সঙ্গে নানা পার্টিতেও নিয়মিতই দেখা সাক্ষাৎ হয়। পার্টি ছিল ইংলিশদের দুমড়ে-মুচড়ে দেওয়া ব্যাটিংয়ের রাতেও। আর বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের পর এমন ফুরফুরে মেজাজে ছিলেন যে পার্টির নিমন্ত্রণ ফেরানোর কোনো কারণই ছিল না। সারারাত তাই আনন্দ ফূর্তিতে বুঁদ হয়ে থেকেছেন। হোটেলে নিজের রুমে ফিরতে ফিরতে সেই ভোর। সেই সময়ই টুইট করে জানিয়েছেন, ‘আমি এখন ভীষণ ক্লান্ত।’ অবশ্য কখনো কখনো ক্লান্তি দূর করতেও পার্টিতে ছুটে যান তিনি। ছুটে গিয়েছিলেন এই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অভিযান শুরুর আগেও। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ না খেলে উদ্দাম জীবনের খোঁজে ছুটে গিয়েছিলেন নাইট ক্লাবে। মুম্বাইয়ের অভিজাত নাইট ক্লাবে তাঁর নিশি অভিযানে সঙ্গ পেয়েছিলেন বলিউডের অভিনেত্রী স্নেহা উল্লালেরও।

সতীর্থ ডোয়াইন ব্রাভোকে নিয়ে রাতভর পার্টি করে আসা গেইলই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দেখা দিলেন আসল চেহারায়। যে চেহারায় তাঁর ব্যাট হয়ে ওঠে মরনাস্ত্র, যার সামনে বড্ড অসহায় দেখায় প্রতিপক্ষের বোলারদের। ৪৭ বলে সেঞ্চুরি করার পথে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ডও নিজের করে নেওয়া এ জ্যামাইকান তাই টুইটারে বেশ গর্ব ভরেই নিজেকে ‘ইউনিভার্স বস’ ঘোষণা করতে পারেন। সেই গৌরবের সঙ্গে মানানসই ব্যাটিংয়ের আগে রাতভর পার্টি করার ঘটনা এটাই নিশ্চিত করে যে উদ্দাম জীবনই আসলে বিধ্বংসী গেইলকে বের করে আনে!

উপরে