আপডেট : ১২ মার্চ, ২০১৬ ১৮:২৮

সানি-তাসকিনের সঠিক ফল পাওয়া নিয়ে ইউডব্লিউএ সংশয় প্রকাশ!

স্পোর্টস ডেস্ক
সানি-তাসকিনের সঠিক ফল পাওয়া নিয়ে ইউডব্লিউএ সংশয় প্রকাশ!

৯ মার্চ নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচে বাংলাদেশি দুই বোলার তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানির বোলিং অ্যাকশন নিয়ে প্রশ্ন তুলেন আম্পায়াররা। নিয়মানুযায়ী এক সপ্তাহের মধ্যে বোলারদের পরীক্ষা দিতে হয় আইসিসি স্বীকৃত ল্যাবে। সারা বিশ্বে আইসিসি স্বীকৃত ল্যাব আছে চেন্নাই, ব্রেসবেন ও কার্ডিফে। মানে তিন মোড়লের দেশে।

আজ শনিবার দুপুরে চেনাইয়ের ল্যাবে বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা দিয়েছেন অফ স্পিনার আরাফাত সানি। আর সোমবার দিবেন ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদ। তবে ল্যাব পরীক্ষায় বাংলাদেশের দুই বোলার সঠিক ফল পাবেন কি না, তা নিয়ে রয়েছে যথেষ্ট সংশয়। কারণ চেন্নাইয়ের ল্যাব, পরীক্ষাপদ্ধতি এবং এ কাজে নিয়োজিতদের মান নিয়ে রয়েছে প্রশ্ন।

বোলিং অ্যাকশন নিয়ে আইসিসির কর্মকাণ্ড ও পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠান ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া (ইউডব্লিউএ), যারা বোলিং অ্যাকশন নিয়ে দীর্ঘদিন আইসিসির সঙ্গে কাজ করেছে। প্রায় একবছর ধরে তারা আইসিসির সঙ্গে নেই। প্রতিষ্ঠানটির অভিযোগ, আইসিসির বর্তমান বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা খুবই দুর্বল, ত্রুটিপূর্ণ ও আপত্তিকর।

প্রতিষ্ঠানটির  বিশেষজ্ঞদের মতে, আইসিসি বর্তমান যে পদ্ধতিতে ও যেভাবে অস্বচ্ছতার সঙ্গে  পরীক্ষাগুলো করছে তা হাস্যকর, সন্দেহজনকও বটে।

ইউডব্লিউএ’র দাবি, আইসিসির বর্তমান স্বীকৃত তিনটি ল্যাবে পুরানো পদ্ধতিতে বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা করা হচ্ছে। ফলে  এখান থেকে সঠিক ফলাফল পাওয়া অসম্ভব। ইউডব্লিউএ বিশেষ চারটি পয়েন্টে  বর্তমান পরীক্ষা পদ্ধতির বিপক্ষে। এক. বল করার মুহূর্তটি সঠিকভাবে নির্ধারন করা হয় না। যে কারণে স্পিনারদের ফলাফলও সঠিক আসেনা। দুই. অ্যাকশন পরীক্ষার মার্কার  সঠিক স্থানে লাগানো হচ্ছে না। তিন. কনুই বাঁকা ও সোজা হওয়ার ভূমিকা ধরা হচ্ছে না। চার. দ্বিমাত্রিক ফুটেজ ও ছবিই ব্যবহার যা সঠিক পদ্ধতি নয়।

শুধু পরীক্ষা পদ্ধতিই নয়, ল্যাবগুলোতে কাজে নিয়োজিতদের অভিজ্ঞতা ও যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে ওই প্রতিষ্ঠানটি। ইউডব্লিউএ’র অভিযোগ, ল্যাবগুলোতে অনেকক্ষেত্রে অনভিজ্ঞ কর্মী দ্বারা পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। ফলে তাতে ভুল থেকে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এই ল্যাবগুলোর স্বচ্ছতা নিয়েও প্রশ্ন আছে ইউডব্লিউএ’র।

 ইউডব্লিউএ’র এই দাবির সঙ্গে অবশ্য একমত নয় আইসিসি। সংস্থাটি বর্তমান পদ্ধতিকে সঠিক বলে দাবি করছে। কিন্তু আইসিসির সেই দাবিকে  অযৌক্তিক এবং অবৈজ্ঞানিক বলে উড়িয়ে দিয়েছে ইউডব্লিউএ।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে