আপডেট : ৬ মার্চ, ২০১৬ ১৬:৩৩

রোহিতের উইকেটকে টার্গেট করেছেন আল-আমিন, লক্ষ্যভেদ হবেই

স্পোর্টস ডেস্ক
রোহিতের উইকেটকে টার্গেট করেছেন আল-আমিন, লক্ষ্যভেদ হবেই

শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বল হাতে যখন আল আমিন দৌড় শুরু করবেন, লক্ষ্য হবে রোহিত শর্মার উইকেট৷ ৪ মার্চ শুক্রবার সন্ধ্যায় ঢাকায় নিজের মোবাইল থেকে ফোনে ভারতীয় এক সাংবাদিককে বাংলাদেশের পেসার বললেন, 'আমার তো মনে হয়, রোহিত শর্মার উইকেটটা সবচেয়ে জরুরি৷ সেটা আমাদের মাথায় আছে৷'
আল আমিন হোসনে৷ এক বছর আগেও ছিলেন বিতর্কে৷ ঘটনাটা হয়তো অনেকের মনে আছে৷ কিন্তু নামটা মনে না-ও থাকতে পারে৷ গতবছরের ফেব্রুয়ারিতে বিশ্বকাপ চলাকালীন ব্রিসবেন থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছিল এই বাংলাদেশি পেসারকে৷ শৃঙ্খলাভঙ্গের অপরাধে৷ বিশ্বকাপের সেই বিতর্ক সরিয়ে এখন বাংলাদেশ ক্রিকেটের পেস-শক্তির অন্যতম প্রধান মুখ এখন তিনি৷ এক কথায় পুনর্জন্ম হয়েছে তাঁর৷
তাঁর গলায় আত্মবিশ্বাস, 'সব সময় সামনের দিকে তাকানো আমার লক্ষ্য৷ সেটা তখন ছিল, এখনও আছে৷ তাই বিশ্বকাপের সময় যা ঘটেছিল, সেটা নিয়ে বসে থাকিনি৷' তারপর গলায় স্বর যেন আর একটু দৃঢ়, 'তবে মনে মনে এটা ঠিক করেছিলাম, যদি আবার সুযোগ পাই, তা হলে দেশের জন্য নিজেকে উজাড় করে কিছু করার চেষ্টা করব৷'
কথা রেখেছেন আল আমিন৷ এশিয়া কাপে প্রথম ওভারে তাঁর হাতে বল তুলে দিচ্ছেন মাশরাফি৷ হতাশ করছেন না বছর ২৬-এর ডান হাতি পেসার৷ এ ভাবেই ৪ ম্যাচে ১০ উইকেট নিয়ে চলতি এশিয়া কাপে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি খুলনার এই যুবক৷
অবশ্য বিশ্বকাপ না খেলার যন্ত্রণা রয়েছে৷ বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে সেই ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচ টিভিতে বসে দেখেছিলেন৷ আল আমিনের সরল স্বীকারোক্তি, 'সবাই বিশ্বকাপ খেলতে চায়৷ কিন্তু যেটা হয়নি সেটা নিয়ে বসে থাকিনি৷ পজিটিভ থাকার চেষ্টা করেছি সব সময়৷ এখনও সেই মানসিকতা নিয়ে খেলে যেতে চাই৷'
ভারতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেললে ব্রিসবেনে ফেলে আসা স্বপ্ন পূর্ণ হবে৷ এই মুহূর্তে আল আমিনের লক্ষ্যে অবশ্য এশিয়া কাপের ফাইনাল৷ আরও ভালো করে বললে, মিশন ভারত৷ গ্রুপ লিগে রোহিত শর্মা ও শিখর ধাওয়ানের উইকেট নিয়ে ভারতকে চাপে ফেলে দিয়েছিলেন আল আমিন৷
এখন অবশ্য পিছন দিকে তাকান না৷ কিন্তু ছাত্রের সুখের দিনে কিছুটা পিছনে হাঁটছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের হাই পারফরম্যান্স কোচ সারওয়ার ইমরান৷ তাঁর গলায় স্মৃতিচারণা, 'বিশ্বকাপ থেকে ফিরে একটু ভেঙে পড়েছিল৷ তারপর গতবছর এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত একটা শিবির হয়েছিল৷ সেখানে সুযোগ পেয়েছিল আল আমিন৷ ওখানে কঠোর পরিশ্রম করেছে৷ সত্যি বলতে, জাতীয় দলে ফেরার জন্য মরিয়া ছিল ও৷' দুর্দান্ত খেলেছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে৷
বিশ্বকাপের আগে বোলিং অ্যাকশন ঠিক করতে চেন্নাই গিয়েছিলেন৷ অবশ্য আল আমিনের প্রতিভা নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটের কোনও সংশয় ছিল না৷ ব্রিসবেনে রাত দশটার পর টিম হোটেলের বাইরে থেকে শৃঙ্খলা ভেঙেছিলেন বলে বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়৷ কিন্তু তাঁর পারফরম্যান্সের উপর থেকে কখনও নজর সরায়নি বাংলাদেশ বোর্ড৷ খোঁজ খবর করে জানা গেল, জাতীয় টিমের বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিক টিমের বাইরে থাকা বোলারদের দিকে একই রকম নজর রাখেন৷
এ সব কারণেই মুস্তাফিজুর রহমান-হীন বাংলাদেশ পেস অ্যাটাককেও শক্তিশালী দেখাচ্ছে৷ আল আমিনের সঙ্গে ও পার বাংলায় পেস বোলিংয়ের বড় অস্ত্র তাস্কিন আহমেদ৷ সম্প্রতি যিনি শোয়েব আখতারের থেকে টিপস পেয়েছেন৷ শোয়েব দেখিয়েছেন, পেস বোলিংয়ের কিছু টেকনিক৷

সব মিলিয়ে তাসকিনের শোয়েব-মন্ত্র আর আল আমিনের বিশ্বকাপ না খেলার যন্ত্রণাই এখন চার্জার বাংলাদেশের পেস ব্যাটারির।

উপরে