আপডেট : ৫ মার্চ, ২০১৬ ১৯:২৫

টি-টোয়েন্টি যুগে মুস্তাফিজ-ই সেরা: দ্য গার্ডিয়ান

স্পোর্টস ডেস্ক
টি-টোয়েন্টি যুগে মুস্তাফিজ-ই সেরা: দ্য গার্ডিয়ান

বারনি রোনাই- ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ‘দ্য গার্ডিয়ান’-এর বিখ্যাত ক্রীড়াকলাম লেখক। তার বেশিরভাগ কলাম ফুটবল নিয়ে। ‘দ্যা গার্ডিয়ান’-এর অনলাইনে তার জন্য আছে আলাদা একটি অংশ। যেখানে শুধু তার লেখাই পাওয়া যায়। এমন বিখ্যাত একজন বিশ্লেষক এবার লিখলেন ক্রিকেট নিয়ে। আর সেটা বাংলাদেশি পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের স্তুতি-কলামও বলা যেতে পারে।

মুস্তাফিজের প্রতি তার প্রবল ভাললাগা ও মুগ্ধতার কথা সাবলীলভাবে তুলে ধরেছেন। একই সঙ্গে মুস্তাফিজের অবাক করা প্রতিভা তাকেই অবাক করেছে। বাংলাদেশি এ পেসারকে নিয়ে তার মুগ্ধতা ও প্রত্যাশা নিয়ে যা লিখেছেন তা সংক্ষিপ্ত আকরে নিচে তুলে ধরা হলো-

মুস্তাফিজুর রহমান কেমন? বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্ত জেলা সাতক্ষীরা থেকে উঠে আসা লাজুক, হালকা-পাতলা গড়নের বাঁ হাতি বোলার। মাত্র আট মাস হলো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার পদচারণা। কিন্তু আপনি তার পরিসংখ্যান দেখুন। দিনে দিনে তার ভক্ত সংখ্যা কিভাবে বাড়ছে সেটা দেখুন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা দিয়ে এখন পর্যন্ত সে ৮২৪ বল করেছে। এরমধ্যে অভিষেকে টানা দুই ওয়ানডেতে ৫ ও ৪ উইকেট নেয়া। তিন ফরমেটে ১৪ গড়ে তার উইকেট ৪৩। ফেব্রুয়ারি মাসে ভারতীয় প্রিমিয়ার লীগে নিলামে সানরাইজার্স হায়দারাবাদ দেড় লাখ পাউন্ডে তাকে দলে ভিড়িয়েছে। টি-টোয়েন্টির স্বপ্নের এ টুর্নামেন্টে আন্তর্ভুক্তি মোটেও অবাক করা ব্যাপার নয়।

তেতুলিয়ার এই ছেলেটিকে বাংলাদেশে গুগলে সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয়। গত বছর ভারতের অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি মুস্তাফিজের ভূয়সী প্রশংসা করেছিলেন। আমি এখন পর্যন্ত সরাসরি তার খেলা দেখিনি। টিভিতে দেখেছি। এছাড়া ইউটিউবে তার বেশ কয়েকটি সাক্ষাৎকার দেখেছি। কিন্তু কিছুই বুঝিনি।

মুস্তাফিজের ভাষাটা না বুঝলেও তার আচরণ ও অঙ্গভঙ্গি বুঝি। উইকেট নেয়া ও সতীর্থদের সঙ্গে উল্লাস বৈ তার অন্য সময়ের কোনো দৃশ্য আমি দেখিনি। এতকিছু না জেনেও নিঃসন্দেহে এখন আমার ফেভারিট আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার সে। মুস্তাফিজ খুব বেশি গতিতে বল করে না। খুব বেশি সুইং কিংবা বাউন্স দেয় না। কিন্তু তার মিডিয়াম পেসে অন্যরকম একটা মোহময়ী রহস্য আছে। একই পজিশনে বল করেও বৈচিত্র্য বোলিংয়ের অদ্ভুত ক্ষমতা তার। বিশ্বমানের ব্যাটম্যানদের বিভ্রান্ত করার দারুণ সব অস্ত্র আছে তার ভাণ্ডারে।

বোলিং স্টাইল ও শারীরিক ভারসম্যের কারণে বল ছাড়ার সময় বলে কিছু কাজ করে দেয় সে। যা যে কোনো ব্যাসম্যানের জন্য সামলানো দুরূহ। আপনি তার কাটারগুলো দেখতে পারেন। এই বলগুলো ব্যাট লাগানো মানে ব্যাটসম্যানের মৃত্যু।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে