আপডেট : ৫ মার্চ, ২০১৬ ১৬:১২

তাঁরা ২ জন যখন দর্শক!

স্পোর্টস ডেস্ক
তাঁরা ২ জন যখন দর্শক!

শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ইনডোরের নেটে আল আমিন, তাসকিন আহমেদ, আবু হায়দার—তিন পেসার একের পর এক তোপ দাগার চেষ্টা করছেন ব্যাটসম্যানকে। ব্যাটসম্যানও পাল্টা আক্রমণে চেষ্টা করছেন জবাব দেওয়ার। ব্যাটসম্যানের নাম মাশরাফি বিন মুর্তজা!
অধিনায়ক কি তাহলে ‘ব্যাটসম্যান’ হয়ে একটু পরখ করে নিলেন তূণের তিরগুলোকে? আল আমিন-তাসকিন তো তাঁর পরীক্ষিত অস্ত্র। কিন্তু আবু হায়দার? গোটা টুর্নামেন্টেই দর্শক হয়ে থেকেছেন এই বাঁহাতি পেসার।
ভারতের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে সবুজ উইকেটে বাংলাদেশ খেলল চার পেসার নিয়ে—মাশরাফির সঙ্গে আল আমিন, তাসকিন ও মুস্তাফিজুর রহমান। আরব আমিরাত ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেও একই বোলিং আক্রমণে আস্থা রাখল টিম ম্যানেজমেন্ট। দলের এমন সমন্বয়ে আবু হায়দারকে একাদশের বাইরে রাখা ছাড়া উপায় কী! পাকিস্তান ম্যাচের আগে মুস্তাফিজের চোট সম্ভাবনার দুয়ার তো একটু খুলেছিলই। কিন্তু প্রতিপক্ষের শক্তির দিক বিবেচনা করে টিম ম্যানেজমেন্ট আরেকজন পেসারের চেয়ে বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানিকে একাদশে নেওয়াটাই বেশি যৌক্তিক মনে করেছে।
কাজেই টুর্নামেন্টজুড়েই আবু হায়দারের ‘আশায় আশায় দিন যে গেল...!’ এই কদিনে ‘দর্শক’ হয়ে দলের খেলা দেখতে কেমন লাগল? একাদশের বাইরে আছেন, তাই বলে এমন নির্মম রসিকতা! শুকনো হাসিতে বললেন, ‘কী যে বলেন! এমন কঠিন প্রশ্ন কেউ করে?’
বিপিএলে নজরকাড়া পারফরম্যান্সে জানুয়ারিতে প্রথমবারের মতো সুযোগ পেয়েছিলেন বাংলাদেশ দলে। খুলনায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের শেষ দুটি ম্যাচে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে বাজিয়েও দেখেছেন তাঁকে। একটু খরুচে হলেও ৩ উইকেট নিয়ে সম্ভাবনার জানান একটু দিয়েছেন।
এশিয়া কাপে বাকি আছে শুধু ফাইনাল। এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্ব নির্ধারণী মঞ্চে তাঁকে দেখা যাবে কি না, সেটি নির্ভর করছে কিছু ‘যদি’, ‘কিন্তু’র ওপর। বাংলাদেশ যদি প্রথম ম্যাচের মতো ফাইনালেও ভারতের বিপক্ষে চার পেসার নিয়ে খেলে, তবেই সম্ভাবনার দুয়ার খুলতে পারে আবু হায়দারের। আর বাংলাদেশ যদি সত্যি চার পেসার নিয়ে খেলে, উইকেট যে ন্যাড়া থাকবে না সেটা বোঝা দুষ্কর নয়।
টুর্নামেন্টে দর্শক-ভূমিকায় আবু হায়দারের আরেকজন ‘সঙ্গী’ নাসির হোসেন। সময়টা ভালো যাচ্ছে না ‘দ্য ফিনিশারে’র। খেলার সুযোগ হয়নি জানুয়ারিতে জিম্বাবুয়ে সিরিজে। এশিয়া কাপে দলে এলেন। কিন্তু এ পর্যন্ত সুযোগ মেলেনি একাদশে। অথচ ২০১২ এশিয়া কাপটা কী দুর্দান্তই না গিয়েছিল তাঁর। ৪ ম্যাচে ৫৫ গড়ে ১৬৫ রান করে বাংলাদেশে তৃতীয় সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহক হয়েছিলেন। আর এবার? সতীর্থদের জন্য পানির বোতল আর তোয়ালে হাতে মাঠে ছোটাছুটি করেই কাটছে নাসিরের এশিয়া কাপ! (সূত্র:প্রথম আলো)

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আইএম

উপরে