আপডেট : ৫ মার্চ, ২০১৬ ১৫:৩৫

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ৮ নক্ষত্র

স্পোর্টস ডেস্ক
বাংলাদেশ ক্রিকেটের ৮ নক্ষত্র

এভাবে আট জনকে বেছে নেওয়া সহজ নয়। বাংলাদেশ ক্রিকেটের এই উত্থানের পিছনে অনেক নাম রয়েছে। ২০০০ সালে আইসিসির সম্পূর্ণ স্বীকৃতি পাওয়ার আগে থেকেই লড়াই শুরু। তার পর দেশের ক্রিকেটকে অনেকেই নিয়ে গিয়েছেন বিশ্ব ক্রিকেটের মঞ্চে। কখনও এসেছে সাফল্য, কখনও ব্যর্থতাও হানা দিয়ে গিয়েছে দেশের ক্রিকেটে। সেখান থেকেই দেখে বেছে নেওয়া দেশের ক্রিকেট ইতিহাসে যে আট জনের নাম উজ্বল অক্ষরে লেখা থাকবে।

* মেহরাব হোসেন- যাঁর ব্যাট থেকে এসেছিল বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট রান (২০০০)। এবং তিনিই প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরিটিও করেছিলেন (১৯৯৯)।

* হাবিবুর বাশার- তিনি একমাত্র ব্যাটসম্যান যাঁর টেস্ট ব্যাটিং অ্যাভারেজ ৩০ শতাংশের বেশি। এতদিন তিনি ছিলেন দেশের সফলতম অধিনায়ক। ২০০৫ এ তাঁর অধিনায়কত্বে প্রথম টেস্ট ম্যাচ জয়, প্রথম টেস্ট সিরিজ জয় ও প্রথম ওয়ানডে সিরিজ জয় এসেছিল বাংলাদেশের।

* অলোক কাপালি-প্রথম হ্যাটট্রিক। আউট করেছিলেন পাকিস্তানের সাব্বির আহমেদ, দানিশ কানেরিয়া ও উমর গুলকে।

* এনামুল হক জুনিয়র- সেরা বোলিং অ্যাভারেজ। এক ইনিংসে ৯৫ রান দিয়ে ৭ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। ২০০৫ এর জানুয়ারির কথা। এক ম্যাচে সেরা বোলিং। ২০০ রান দিয়ে ১২ উইকেট।

* শাহরিয়র নাফিস- এক মরশুমে প্রথম কোনও ব্যাটসম্যান যিনি ১০০০ রান করেছিলেন তাঁর কেরিয়ারে। যেখানে ছিল তিনটি সেঞ্চুরি।সেটা ২০০৬।

* মাশরাফি মোর্তাজা- ২০০৬ সালেই একদিনের ম্যাচে ৪৯টি উইকেট নিয়ে দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। আর এখন সফলতম অধিনায়ক তিনি।

* সাকিব আল হাসান- বিশ্বের সেরা অল রাউন্ডারদের মধ্যে তিনি একজন। তিনিই প্রথম বাংলাদেশের প্লেয়ার যিনি আইসিসি-র অলরাউন্ডার র‌্যাঙ্কিংয়ে দীর্ঘদিন শীর্ষে ছিলেন। এখন রয়েছেন দ্বিতীয় স্থানে।

* মুস্তাফিজুর রহমান- তাঁর বল বিশ্বের তাবড় তাবড় ব্যাটসম্যানদের কাছে হয়ে উঠেছিল ত্রাস। টি২০ দিয়ে শুরু কেরিয়ার। প্রথম ম্যাচে ৫ উইকেট নিয়ে ইতিহাসে ঢুকে পরা মুস্তাফিজুর ২০১৫তেই তিন ম্যাচের সিরিজে ১৩ উইকেট নিয়ে বিশ্বরেকর্ড করে ফেলেছিলেন।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে