আপডেট : ২ মার্চ, ২০১৬ ২১:০০

শূন্য রানে ফিরে গেলেন আফ্রিদি

স্পোর্টস ডেস্ক
শূন্য রানে ফিরে গেলেন আফ্রিদি

এশিয়া কাপের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই চাপের মধ্যে রয়েছে পাকিস্তান। বুধবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের পেস অ্যাটাকে অনেকটাই কোনঠাসা আফ্রিদি শিবির। মাত্র ১৮ রানেই তিন উইকেট হারিয়েছে তারা।

দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলেই পাক ওপেনার খুররম মানজুরকে উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে ক্যাচ বানান পেসার আল আমিন হোসেন। পাকিস্তানের দলীয় রান তখন মাত্র এক।

সাত বলে মাত্র এক রান করে সাজঘরে ফেরেন খুররম মানজুর। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে কোন রানই দেননি পেসার তাসকিন আহমেদ। চতুর্থ ওভারে এসেই চমক দেখান দলে ফেরা স্পিনার আরাফাত সানি। ৩.৫ ওভারে শারজিল খানের মিডল স্ট্যাম্প উপড়ে ফেলেন তিনি। ব্যাটসম্যান পুরোদমে পরাস্ত। ৮ বলে ১০ রান করে বিদায় নেন গেল পাকিস্তান সুপার লিগের একমাত্র সেঞ্চুরিয়ান শারজিল।

কাঁপতে থাকা পাকিস্তান শিবিরে এরপর অধিনায়ক মাশরাফির আঘাত। ৪.৫ ওভারে পাকিস্তানের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ হাফিজকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন নড়াইল এক্সপ্রেস। ১১ বলে মাত্র দুই রান করে টেস্ট মেজাজে বিদায় নেন হাফিজ। যদিও মাশরাফির এলবিডব্লিউর আউট নিয়ে কিঞ্চিত সংশয় রয়েছে। কারণ রিপ্লেতে দেখা গেছে, বল আসলে চলে যেতে স্ট্যাম্পের উপর দিয়ে।

দুই ওভারে মেডেনসহ মাত্র এক রান। উইকেটের দেখা না পাওয়া তাসকিন সফল তার তৃতীয় ওভারে। ৮.২ ওভারে তাসকিনের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে সাকিবের তালুবন্দী হন উমর আকমল। অনেক উচুতে উঠা বলটি বেশ দায়িত্বের সঙ্গেই লুফে নেন সাকিব। পাকিস্তানের দলীয় রান তখন ২৮। আর ১১ বলে মাত্র ৪ রান করে ফেরেন উমর আকমল।  টি২০ ম্যাচটিতে যেন টেস্টের আবহ বিরাজ করছে।

তবে পাকিস্তানের বিপদে ব্যাট হাতে হাল ধরেন পঞ্চম উইকেট জুটিতে শোয়েব মালিক ও সরফরাজ আহমেদ। এই জুটিতে তারা রান তোলে ৭০। শেষ অবধি শোয়েব মালিকে ফিরিয়ে এই জুটি বিচ্ছিন্ন করেন স্পিনার আরাফাত সানি। ১৬.৪ ওভারে সানির বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে সাব্বিরের হাতে তালুবন্দী হন শোয়েব মালিক। তবে সাজঘরে ফেরার আগে করে যান ৩০ বলে ৪১ রান।

এই রিপোর্ট লেখা অবধি পাকিস্তানের সংগ্রহ ১৭.২ ওভারে ৫ উইকেটে ১০২ রান।

ম্যাচে বাংলাদেশ দলে দুটি পরিবর্তন রয়েছে। মুস্তাফিজ ও নুরুল হাসানের পরিবর্তে দলে ঢুকেছেন হার্ড হিটার তামিম ইকবাল ও আরাফাত সানি। পাকিস্তান দলে পরিবর্তন একটি। মোহাম্মদ নওয়াজের পরিবর্তে দলে ঢুকেছেন আনোয়ার আলী।

এই ম্যাচটি বাংলাদেশের জন্য অলিখিত সেমিফাইনাল। পাকিস্তানকে হারাতে পারলে কোন হিসাব ছাড়াই ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করবে মাশরাফি শিবির। তবে পাকিস্তান জিতলেও ফাইনাল ভাগ্য ঝুলে থাকবে বাংলাদেশের। সে ক্ষেত্রে মাশরাফিদের তাকিয়ে থাকতে হবে লিগ পদ্ধতির শেষ ম্যাচ আগামী চার মার্চ পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কার দিকে। ঐ ম্যাচে শ্রীলঙ্কা জিতলে তিন দলের পয়েন্ট হবে সমান। রান রেটের হিসাবে ফাইনালে যাবে একটি দল।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ মিথুন, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মাশরাফি বিন মর্তুজা, আল আমিন, আরাফাত সানি ও তাসকিন আহমেদ।

পাকিস্তান একাদশ: মোহাম্মদ হাফিজ, শারজিল খান, খুররমম মানজুর, উমর আকমল, শোয়েব মালিক, সরফরাজ আহমেদ, শহীদ আফ্রিদি, আনোয়ার আলী, মোহাম্মদ সামি, মোহাম্মদ আমির ও মোহাম্মদ ইরফান।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে