আপডেট : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ০৯:৩২

মাশরাফিকে বল করতে ভয় পায় মোস্তাফিজ!

স্পোর্টস ডেস্ক
মাশরাফিকে বল করতে ভয় পায় মোস্তাফিজ!

ভারতের গণমাধ্যমগুলো মুস্তাফিজকে নিয়ে বেশ মাতামাতি করছে। মুস্তাফিজের প্রশংসা যতটুকু না করছে তার রহস্য উন্মোচন করার চেষ্টা করছে তার থেকে বেশি। স্বাভাবিকভাবেই ২০ বছর বয়সি তরুণ এ ক্রিকেটারের জন্য এ রকম পরিস্থিতিতে মানিয়ে নেওয়া অনেকটা চ্যালেঞ্জের। কিন্তু মাশরাফি বলছেন খেলার বাইরের কোনো ইস্যুতেই মুস্তাফিজের চিন্তা নেই, ‘ওকে নিয়ে যত কথা হচ্ছে সেগুলো নিয়ে ও কিছুই কানে নেয় না। এটাই ওর সবচেয়ে ইতিবাচক দিক। আমি মনে করি এটা ওর জন্মগত পাওয়া। মুস্তাফিজকে নিয়ে সবাই যেটা চিন্তা করছে। কিন্তু ও সম্পূর্ণ বিপরীত। অনেক সময় দেখা যায় অনেকেই বাইরে আলোচনা করলে ওগুলো নিয়ে অনেকেই মাথা ঘামায়, চিন্তা করে। মুস্তাফিজ সম্পূর্ণ উল্টো। ক্রিকেট মাঠে বোলিং করে, ম্যাচটি খেলে। এর বাইরে ক্রিকেট নিয়ে ওর কোনো কথা নেই। খেয়ালও করে না যে ওকে নিয়ে কোনো কথা হচ্ছে কি হচ্ছে না।’

ক্রিকেট বিশ্বের বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদের নাকানি-চুবানি খাওয়ানো সেই মুস্তাফিজুর রহমান নাকি মাশরাফিকে বল করতে ভয় পান! ক্রিকেট বোদ্ধাদের এই কথাটা স্বীকার করতেই হবে। মাশরাফি বিন মুর্তজাও সে কথাটাই বললেন। ২৩ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার মাশরাফি বলেন, ‘ও (মুস্তাফিজ) শুধু আমাকে বল করতে ভয় পায়।’

এবারের বিপিএলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও ঢাকা ডায়নামাইটসের ম্যাচে মুস্তাফিজের বিপজ্জনক স্লোয়ারে মিড উইকেটের ওপর দিয়ে বড় ছক্কা হাঁকান মাশরাফি, যা বিপিএলের তৃতীয় আসরের সবচেয়ে বড় ছক্কার খেতাবও অর্জন করে। ওই ম্যাচে মুস্তাফিজের ৯ বলে ৮ রান করেন মাশরাফি।

আজ (২৪ ফেব্রুয়ারি) থেকে শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপ টুর্নামেন্ট। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। গত বছর ভারতের বিপক্ষে অভিষেক ওয়ানডে সিরিজে মুস্তাফিজুর রহমান দারুণ বোলিং করে লাইমলাইটে চলে আসেন। ‘মাত্র’ ৩ ওয়ানডেতে নেন  ১৩ উইকেট। তার বোলিংয়ে ভারতের ব্যাটসম্যানরা ছিল অসহায়। এবার কি সে পথেই মুস্তাফিজ!

মাশরাফি জানালেন, মুস্তাফিজ প্রতিপক্ষ কিংবা প্রতিপক্ষের কোনো ব্যাটসম্যানকে নিয়ে কখনোই কোনো চিন্তা করেন না। নিজের পারফরম্যান্সে সব সময় বিশ্বাস রাখার কারণে সাফল্যের সিঁড়ি বেয়ে ওপরে উঠছেন। মুস্তাফিজকে নিয়ে মাশরাফির ভাষ্য, ‘মুস্তাফিজের সব সময় আত্মবিশ্বাস থাকে। ওর যেই স্লোয়ারটা আছে ‘‘কাটার’’, ও সেটা বিভিন্নভাবে করতে পারে। ম্যাচের আগে ও কখনোই ব্যাটসম্যান কিংবা কোনো দল নিয়ে চিন্তা করে না। ও নিজের ওপর বিশ্বাস রাখে, নিজের পারফরম্যান্সকে বিশ্বাস করে। ব্যাটসম্যান কী করবে সেটা চিন্তা করে না। এই বিশ্বাস ওকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যায়। নিজের ওপর অনেক বিশ্বাস ওর। চাইলেই ওকে নিয়ে হোমওয়ার্ক করতে পারেন কিন্তু খুব কঠিন হবে আপনার জন্য।’

উপরে