আপডেট : ১৯ অক্টোবর, ২০১৭ ১৯:০১

বিচারকের ভূমিকায় পেশকার, অতঃপর...

অনলাইন ডেস্ক
বিচারকের ভূমিকায় পেশকার, অতঃপর...

বিচারকের অজ্ঞাতে সমন জারির আদেশ দেয়ায় বরখাস্ত হয়েছেন বরিশাল প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনালের বেঞ্চ সহকারী (পেশকার) সাইফুল ইসলাম। তিনি বিচারকের আদেশ ছাড়াই একটি নালিশি অভিযোগ আমলে নিয়ে স্বরাষ্ট্র সচিব ও পুলিশের আইজিপিসহ ১০ জনকে সমন জারির আদেশ দিয়েছিলেন।

সম্প্রতি বিষয়টি জানাজানি হলে সাইফুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। একই সঙ্গে আগামী তিনদিনের মধ্যে তাকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনালের (ভারপ্রাপ্ত) বিচারক এবং বরিশাল জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক সৈয়দ এনায়েত হোসেন।

বৃহস্পতিবার (১৯ অক্টোবর) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আব্দুল গাফফারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

প্রশাসনিক কর্মকর্তা আব্দুল গাফফার বলেন, বরিশাল রেঞ্জ রিজার্ভ ফোর্সে (আরআরএফ) কর্মরত পুলিশ কনস্টেবল মো. জসিম উদ্দিনকে অনৈতিক কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে গত ১৮ মে সাময়িক বরখাস্ত করে কর্তৃপক্ষ। বরখাস্তাদেশ চ্যালেঞ্জ করে গত ৫ অক্টোবর বরিশালের প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনালে স্বরাস্ট্র সচিব, আইজিপি এবং ডিআইজিসহ ১০ ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নালিশি মামলা করতে প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনালে আবেদন করেন কনস্টেবল জসিম উদ্দিন। আরজিটি মামলা হওয়ার যোগ্য কিনা তা শুনানির জন্য আদালতের বিচারক আগামী ১ নভেম্বর দিন ধার্য করেন।

কিন্তু ওই ট্রাইব্যুনালের বেঞ্চ সহকারী (পেশকার) সাইফুল ইসলাম গত ১১ অক্টোবর বিচারকের অজ্ঞাতে ওই আবেদনের বিবাদী স্বরাস্ট্র সচিব, আইজিপি ও রেঞ্জ ডিআইজিসহ ঊর্ধ্বতন ১০ পুলিশ কর্মকর্তাকে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে সমন প্রেরণ করেন।

এ খবর জানাজানি হলে ট্রাইব্যুনালের ভারপ্রাপ্ত বিচারক জেলা ও দায়েরা জজ সৈয়দ এনায়েত হোসেন ভুয়া সমন পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে গতকাল বুধবার রাতে বেঞ্চ সহকারী সাইফুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করে আগামী তিনদিনের মধ্যে এর কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট মো. মজিবর রহমান জানান, বেঞ্চ সহকারী হয়ে সাইফুল বিচারকের ভূমিকা নিয়েছেন। বিচারকের আদেশ ছাড়াই সমন জারি করেছেন। তিনি অসৎ উদ্দেশ্যে কিংবা অনৈতিক সুবিধা গ্রহণ করে ওই কাজটি করে থাকতে পারেন। গুরুতর অপরাধের কাজ করেছেন তিনি। এ কারনে তাকে সাময়িক বরখাস্ত এবং কারণ দর্শাতে বলেছেন আদালত।

অভিযুক্ত প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনালের বেঞ্চ সহকারী (পেশকার) সাইফুল ইসলাম জানান, কাজের চাপ থাকায় ভুলক্রমে সমন প্রেরণ করা হয়েছে। কারণ দর্শানোর জবাবে তিনি অনিচ্ছাকৃত এ ঘটনায় নিজের ভুল স্বীকার করে আদালতের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করবেন।

 বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে