আপডেট : ১৬ অক্টোবর, ২০১৭ ২০:৫০

বরখাস্ত হচ্ছেন কাউন্সিলর রুমকি

অনলাইন ডেস্ক
বরখাস্ত হচ্ছেন কাউন্সিলর রুমকি

ভগ্নিপতি তুফানের কাছে ধর্ষণের শিকার ছাত্রীকে ও তার মাকে ডেকে এনে মাথা ন্যাড়া এবং নির্যাতনের দুটি মামলায় চার্জশিটভুক্ত আসামি বগুড়া পৌরসভার ২ নম্বর সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকি বরখাস্ত হচ্ছেন। তার বিরুদ্ধে চার্জশিটের বিষয়টি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে লিখিতভাবে অবহিত করা হয়েছে। বর্তমানে তিনি বগুড়া কারাগারে আছেন।

বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজে ভর্তির নামে বহিষ্কৃত শ্রমিক লীগ নেতা তুফান সরকার তার বাহিনীর সদস্যদের মাধ্যমে গত ১৭ জুলাই দুপুরে ছাত্রীকে তার বাড়িতে ধরে এনে ধর্ষণ করেন। ঘটনাটি প্রকাশ না করতে তখন তাকে হুমকিও দেয়া হয়। তুফানের স্ত্রী আশা ঘটনাটি জানলে তিনি ওই ছাত্রী ও তার মাকে উল্টো শায়েস্তা করার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি তার বোন বগুড়া পৌরসভার ২ নম্বর সংরক্ষিত আসনের (৪, ৫ ও ৬) ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুমকি ও মা রুমির সঙ্গে পরিকল্পনা করেন।
গত ২৮ জুলাই মা ও মেয়েকে রুমকির অপহরণ করে এনে শ্লীলতাহানি, নির্যাতন এবং চুল কেটে দেয়ার পর নাপিত ডেকে তাদের ন্যাড়া করে দেয়া হয়।
তুফান বাহিনীর হুমকি সত্ত্বেও এক প্রতিবেশী মা ও মেয়েকে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করেন।পরদিন ২৯ জুলাই ছাত্রীর মা সদর থানায় তুফানসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও নির্যাতনের পৃথক মামলা করেন। পরে পুলিশ আসামিদের গ্রেফতার করে। আদালতের নির্দেশে ছাত্রী ও তার মা রাজশাহীর সেফহোম এবং ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে আছেন।
অভিযোগ রয়েছে, গত পৌরসভা নির্বাচনে মতিন সরকার ও তুফান সরকার বাহিনী ভোট ডাকাতির মাধ্যমে ২ নম্বর সংরক্ষিত আসনে কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হন মার্জিয়া হাসান রুমকি। জয়লাভের পর রুমকি জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মমতাজ উদ্দিনকে ফুল দিয়ে বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন।
এদিকে মামলার ৭৩ দিনের মাথায় গত ১০ অক্টোবর তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন) আবুল কালাম আজাদ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চার্জশিট জমা দেন।
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের মামলায় ১০ জন ও পেনাল কোর্ডের (দণ্ডবিধির) মামলায় ১৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। দুটি চার্জশিটে তুফান সরকার প্রধান ও রুমকি চতুর্থ আসামি।
তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান, রুমকি এক চার্জশিটে অপহরণ ও অপরটিতে নির্যাতনের কারণে অভিযুক্ত হয়েছেন।
বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তী জানান, কোনো মামলায় চার্জশিট হলেই জনপ্রতিনিধিরা সাময়িক বরখাস্ত হয়ে থাকেন।
বগুড়ার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক সুফিয়া নাজিম জানান, পৌর কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকির বিরুদ্ধে চার্জশিট হওয়ার বিষয়টি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে অবহিত করা হয়েছে। তবে সোমবার বিকাল পর্যন্ত তাকে সাময়িক বরখাস্ত করার কোনো চিঠি আসেনি।

উপরে