আপডেট : ২৮ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৩০

জলে ভাসা ‘জিন্দাবাবা’ এখন কবর ‘চিল্লায়’ (ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক
জলে ভাসা ‘জিন্দাবাবা’ এখন কবর ‘চিল্লায়’ (ভিডিও)

হবিগঞ্জে জেলার বানিয়াচং উপজেলার নয়াপাথারিয়া গ্রামে নিজেকে জিন্দা শাহ পীর দাবী করা এক ব্যাক্তির কান্ড ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে পুরো এলাকা জুড়ে। নিজের হাত-পা বাঁধা অবস্থায় পানির উপরে ভেসে থেকে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তিনি। বৃদ্ধর বয়স ৭০ বছরের বেশি হবে। সাতদিন আগে এসে উপস্থিত হন নয়াপাথারিয়া গ্রামে। গত শনিবার হাত-পা বাঁধা অবস্থায় পুকুরে ভেসে বেড়িয়েছেন। এই অদ্ভুত মানুষটিকে একনজর দেখতে আশেপাশের এলাকা থেকে ছুটছেন হাজারো মানুষ। 

গতকাল ২৭ মার্চ রোববার দুপুরে ওই বৃদ্ধ স্বেচ্ছায় কবরে অবস্থান নিয়েছেন। তিনদিন পর তিনি কবর থেকে উঠবেন বলে জানালেন। ওই বৃদ্ধের নাম জিতু মিয়া। কিন্তু গ্রামের সবাই তাঁকে ‘জিন্দাবাবা’ নামে চিনে।

নয়াপাথারিয়া গ্রামের এক পুকুরপাড়ে রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে কবরে প্রবেশ করেন জিতু মিয়া। তাঁর সঙ্গে দেওয়া হয়েছে ৩০০ গ্রাম আঙ্গুর আর একটি বিস্কুটের ‘বৈয়াম’। আগামী মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটায় তাঁকে কবর থেকে ওঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

তবে দর্শনার্থীদের কেউ বলছেন, এটি কুসংস্কার অথবা যাদু-টোনা। আবার কেউ এটিকে ‘অলৌকিক’ আখ্যা দিয়ে পীরের কেরামতি মানতে চাইছেন । রহস্যময় এই মানুষটি কে তা নিয়ে পুরো এলাকা জুড়ে চলছে বিভ্রান্তি।

নিজেকে জিন্দা শাহ্‌ পীর দাবী করা এই ব্যাক্তির নাম জিতু মিয়া। তার দাবি, তিনি গত ৪৫ বছর ধরে বিভিন্ন মাজারে ঘুরে আধ্যাত্মিক সাধনা করছেন। নিজেকে তিনি হবিগঞ্জ শহরের আরেক আধ্যাত্মিক সাধক দেওয়ান মাহবুব রাজার ভক্ত দাবি করে বলেন, তার আদেশেই তিনি চিল্লায় যাচ্ছেন। আর এজন্য তিনি বেছে নিয়েছেন নয়াপাথারিয়া গ্রামকে।

জিতু মিয়া বলেন, ‘এর আগে ১১ বার আমি চিল্লায় গিয়েছি। আর এটাই আমার শেষ চিল্লা।’ তিনি বলেন, ‘আমি নিজের ইচ্ছায় কবরে যাচ্ছি। আমি আগেও গিয়েছি। যদি কোথাও লিখে বলতে হয় আমি তাও রাজি আছি। আমি যদি মারাও যাই তবুও কেউ দায়ী নয়। আমার দায়দায়িত্ব আমার।’  

এদিকে নয়াপাথারিয়া গ্রামে নেমেছে মানুষের ঢল। কেউ আনছে টাকা, কেউবা খাবার। সবই ‘জিন্দাবাবা’র জন্য। ‘জিন্দাবাবা’ও দিচ্ছেন পরামর্শ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, টিন দিয়ে ঘেরাও করা একটি জায়গায় মাটি কাটা হয়। সেখানে কবর খোঁড়া হয়। সামনে থেকেই সব তদারকি করেন জিতু মিয়া। কবরের ওপর সমান করে বাঁশও দেওয়া হয়। বাঁশের ওপর পাটি বিছানো হয়। এক পর্যায়ে সবাই মিলে জিতু মিয়াকে কবরে ঢুকিয়ে দিয়ে পাটির ওপর মাটি দিয়ে ঢেকে দেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

 

জিতু মিয়ার বাড়ি সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলায়। কিন্তু পাঁচ বছর ধরে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার তিমিরপুর গ্রামে বাস করছেন তিনি। সংসার জীবনে তিনি তিন ছেলে ও দুই মেয়ের বাবা। কিন্তু সংসারে তিনি থাকেন না। সুযোগ পেলেই বেরিয়ে পড়েন।

এবার বেরিয়ে জিতু মিয়া হাজির হন বানিয়াচং উপজেলার নয়াপাথারিয়া গ্রামে। ওই গ্রামের একটি পুকুর জিতু মিয়ার পছন্দ হয়। পুকুরপাড়ে থাকার ইচ্ছের কথা জানান স্থানীয় বাসিন্দাদের। পুকুরপাড়ের জমির মালিক মেহেদী মিয়ার ছেলে জুয়েল মিয়া সেখানে একটি ঘর করে দেন। সে ঘরেই তৈরি করা কবরে অবস্থান নিয়েছেন জিতু মিয়া।

জুয়েল মিয়া বলেন, ‘এক সপ্তাহ ধরে বিভিন্ন গ্রামের পুকুরে গেছেন জিন্দাবাবা। সবাই বলেছে থেকে যাওয়ার জন্য। তিনি থাকেননি। পরে এ পুকুরে আসেন। এ পুকুরে নেমে তারপর তিনি বলেন, পাড়ে জায়গা দেওয়ার জন্য। এখানে তিনি আস্তানা গড়তে চান। আমার আব্বা তাঁকে দেখে বলেন যে আমি ঘর করে দিব।’

জুয়েল আরো বলেন, ‘এখন ভয় লাগছে। তিনি চিল্লায় মানে কবরে যেতে চান। যদি কিছু হয় তাহলে তো ভয় অনেক। পরে তাঁর স্ত্রীসহ পরিবারের লোকজনদের ডেকে নিয়ে এসেছি। তাঁদের মতামত ছাড়া এটা আমরা করতে পারি না।’

উপরে