আপডেট : ১৩ মার্চ, ২০১৬ ১৭:১৪

১৭ মাসের শিশুকে ছুরি মেরে নাড়িভুঁড়ি বের করে দিল সন্ত্রাসীরা

বিডিটাইমস ডেস্ক
১৭ মাসের শিশুকে ছুরি মেরে নাড়িভুঁড়ি বের করে দিল সন্ত্রাসীরা

মায়ের পেটে শিশু গুলিবিদ্ধ ও শিশুর পায়ে গুলির পর এবার ১৭ মাসের এক শিশুর পেটে ছুরি মেরে নাড়িভুঁড়ি বের করে ফেলেছে সন্ত্রাসীরা।

রোববার বেলা ১০টার দিকে ময়মনসিংহের নান্দাইলে চন্ডীপাশা গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটে। ওই শিশুর নাম বীথি। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসি জানায়, নান্দাইল পৌরসভার চন্ডীপাশায় ৯ শতাংশ জমি নিয়ে দ্বীন ইসলামের সাথে দশালিয়ার শাহজাহানের বিরোধ চলছিল। গত সপ্তাহে বিরোধপূর্ণ জমিতে দ্বীন ইসলাম ও শাহাজাহান দুইটি ঘর নির্মাণ করে। দুইদিন আগে (বৃহস্পতিবার) শাহাজাহান দ্বীন ইসলামের নির্মিত ঘর ভেঙে ফেলে। আজ রোববার সকালে দ্বীন ইসলাম আবার ঘর নির্মাণ করতে গেলে শাহজাহান বাধা দেয় ও তার ওপর হামলা চালায়। এ সময় দৌড়ে পালান তিনি। এরপর দ্বীন ইসলামের স্ত্রী বিউটি বেগমকে খোঁজ করতে থাকে হামলাকারীরা। এক পর্যায়ে প্রতিবেশী শরীফার কোল থেকে দ্বীন ইসলামের ১৭ মাসের শিশু বীথিকে টেনে নিয়ে ছুরিকাঘাত করে শাহজাহান। এতে বীথির পেট দিয়ে ছুরি ঢুকে পিঠ দিয়ে বের হয়ে যায়। ফলে নাড়িভুঁড়ি বেরিয়ে আসে। এরপর সন্ত্রাসীরা চলে গেলে স্থানীয় লোকজন বীথিকে নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করলে দুপুর একটার দিকে জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়।
জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. মইনউদ্দিন খান জানান, বীথি নামের ১৭ মাসের শিশুকে ছুরিকাঘাত করায় নাড়িভুঁড়ি বেরিয়ে গেছে। তার অবস্থা খুবই শোচনীয়। তাকে শিশু সার্জারি বিভাগে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে বীথির পেটে অস্ত্রোপচার করে ছুরিটি বের করেছেন চিকিৎসকেরা। তবে বেলা তিনটায় এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত শিশুটির জ্ঞান ফেরেনি।

বীথির মা বিউটি বেগম জানান, আট বছর আগে তার স্বামী সাড়ে ১৬ লাখ টাকার জমি বিক্রি করে শাহজাহানকে নিয়ে ঢাকায় ব্যবসা করতে যান। কয়েক বছরের মধ্যে শাহজাহান সমুদয় টাকা আত্মসাৎ করলে তার স্বামী নিঃস্ব হয়ে পড়েন। চন্ডীপাশায় তাদের ৯ শতাংশ জমিতে কয়েকদিন আগে একটি ঘর নির্মাণ করা হলে দুইদিন আগে শাহাজাহন ঘরটি ভেঙে ফেলে। রোববার সকালে আবারো ওই জমিতে ঘর তুলতে গেলে 'পুইট্ট্যা' শাহজাহানের নেতৃত্বে ৫/৬জন সন্ত্রাসী তার স্বামীর ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা তার স্বামীকে হত্যা করতে উদ্যত হলে তিনি দৌড়ে পালিয়ে যান। এসময় কয়েকজন সন্ত্রাসী দা, বল্লম নিয়ে তার পিছু ধাওয়া করে।

একই সময় পুইট্ট্যা শাহজাহান ও আলমগীর তাকে (বিউটি বেগম) খুঁজতে থাকে এবং ঘর থেকে বেরিয়ে আসতে চিৎকার করতে থাকে। তিনি তিনদিন আগে সিজারিয়ান অপারেশনের মধ্যদিয়ে এক কন্যাশিশুর মা হয়েছেন এবং প্রসুতি হওয়ায় তিনি ঘর বের হতে পারেন নি। এক পর্যায়ে শাহজাহান ঘরে ঢুকে ১৭ মাসের কন্যাশিশু বীথিকে টেনে-হেচরে ঘরের বাইরে নিয়ে পেটে ছুরিকাঘাত করে।

দ্বীন ইসলাম স্থানীয় সাংবাদিকদের নিকট অভিযোগ করে বলেন, জমির জবরদখল নিয়ে তিনি বারবার নান্দাইল থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ করার পরও পুলিশ কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় শাহাজাহান তাদের ওপর হামলা করার সাহস পায়।

নান্দাইল থানার ওসি আতাউর রহমান বলেন, অপরাধীদের ধরতে পুলিশের চারটি দল অভিযান চালাচ্ছে। ঘটনার পর পুলিশ বিরোধপূর্ণ জমির স্থাপনাসমুহ জব্দ করে থানায় নিয়ে এসেছে। তিনি আরো জানান, এক সময় দ্বীন ইসলাম ও শাহাজাহনের মধ্যে খুবই বন্ধুত্ব ছিল। দ্বীন ইসলাম নিরক্ষর মানুষ। দিনমজুরি করে জীবিকা নির্বাহ করেন। শাহজাহান প্রতারণা করে দ্বীন ইসলামের জমি হাতিয়ে নিয়ে থাকতে পারে বলে তিনি সন্দেহ করছেন। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
শাহাজাহনের বিরুদ্ধে থানায় একাধিকবার অভিযোগ দায়ের করা প্রসঙ্গে ওসি বলেন, তিনি কয়েকমাস আগে নান্দাইলে যোগদান করেছেন। তার সময়ে দ্বীন ইসলামের কোনো অভিযোগ তিনি পাননি।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

 

 

উপরে