আপডেট : ৬ মার্চ, ২০১৬ ১১:০২

খুলনায় চিকিৎসকদের চলছে ধর্মঘট

বিডিটাইমস ডেস্ক
খুলনায় চিকিৎসকদের চলছে ধর্মঘট

তেরখাদা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এফএম অহিদুজ্জামনকে গ্রেফতারের দাবিতে খুলনার সরকারি-বেসরকারি সব হাসপাতাল ও ক্লিনিকের চিকিৎসকদের ধর্মঘট রবিবার দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে। শনিবার ভোর ৬টা থেকে ৪৮ ঘণ্টার লাগাতার এ কর্মবিরতি শুরু হয়।

তেরখাদা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. আব্দুল্লা হেল মামুনকে সোমবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) ঘুষি মেরে দাঁত ভেঙে ফেলেন চেয়ারম্যান এফএম অহিদুজ্জামন। এ ঘটনায় ডা. মামুন বাদী হয়ে চেয়ারম্যানসহ পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে তেরখাদা থানায় মামলা করেছেন।

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) খুলনার সভাপতি ডা. শেখ বাহারুল আলম জানান, অভিযুক্ত চেয়ারম্যানকে গ্রেফতারের দাবিতে তাদের এ ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘট।

খুলনা বিএমএ সভাপতি আরও জানান, ঘটনার পরপরই তেরখাদা থানায় অভিযুক্ত চেয়ারম্যানকে আসামি করে মামলা করা হয়। কিন্তু ৬ দিনেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেনি। অভিযুক্ত চেয়ারম্যান গ্রেফতার হলেই তাদের এ ধর্মঘট স্থগিত করা হবে।

তেরখাদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাজাহান খান জানান, চেয়ারম্যান অহিদুজ্জামানকে গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হচ্ছে।

জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান কালু বলেন, ‘উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও তেরখাদা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান অহিদুজ্জামানের হাতে সরকারি কর্মকর্তা লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা এই প্রথম নয়। সম্প্রতি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের দিন তিনি বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র কেড়ে ছিড়ে ফেলেন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এবারও চেয়ারম্যান হয়েছেন তিনি।

সোমবার তেরখাদা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরি বিভাগে কর্মরত ছিলেন চিকিৎসক আব্দুল্লা হেল মামুন। এ সময় চেয়ারুম্যান অহিদুজ্জামান ডাক্তারকে বাসায় গিয়ে তার স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য বলেন। ডাক্তার জরুরি বিভাগ ছেড়ে যেতে পারবেন না জানিয়ে চেয়ারম্যানের বাসায় একজন নার্স পাঠান। এরপর রাত ৮টার দিকে চেয়ারম্যান ও তার লোকজন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গিয়ে ডাক্তারকে ঘুষি মারেন। এতে তার তিনটি দাতঁ ভেঙে যায়।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

 

উপরে