আপডেট : ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৪:৩৯

সবই নিয়ে গেলেন, ফেলে রেখে গেলেন দুই স্ত্রী!

বিডিটাইমস ডেস্ক
সবই নিয়ে গেলেন, ফেলে রেখে গেলেন দুই স্ত্রী!
স্ত্রীদের বাড়িতে রেখেই দুই ভাই এক সাথে ভারতে পালিয়ে গেছেন, সাথে নিয়ে গেছেন পিতা মাতা ও সন্তান। তারা পালিয়ে যাওয়ার আগে নিজেদের বাড়িঘর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে অসহায় অবস্থায় দিনাতিপাত করছে দুই গৃহবধূ। ঘটনাটি ঘটেছে বগুড়ায়।রোববার দুপুরে বগুড়া প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘটনার বর্ণনা দেন দুই গৃহবধূ দিপালী রানী কর্মকার ও তপতী রানী কর্মকার। 
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বগুড়া সদর থানার ধাওয়াকোলা কর্মকার পাড়ার বাসিন্দা রাজ্য চন্দ্র কর্মকার ও বাবলু কর্মকার নামের দুই ভাই মহাস্থান বন্দরে লোহার কাজ করতেন। বিয়ের পর থেকে মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে অনেক টাকা ও আসবাবপত্র দিয়েছে জামাইদের। এরপরও স্বামীরা স্ত্রীদের নির্যাতন করতেন। বেশকিছু দিন আগে দিপালী ও তপতীকে শ্বশুর শাশুড়ি বলেন, জমিজমা বিক্রি করে ভারতে চলে যাব। এতে আমরা সম্মতি জানাই। এরপর সব সম্পত্তি বিক্রি করা হয়।
 
বাড়ি বিক্রির পর ভাড়া বাসায় বসবাস শুরু করি। এরই মধ্যে দেবর তার স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে ভারতে চলে যান। এরপর গত ২৫ ফেব্রুয়ারি পাশের গ্রামে পুজার কথা বলে দুৎজায়ের তিন সন্তান নিয়ে শ্বশুর ও শাশুড়ি চলে যায়। পর দিন দুই ভাই রাজ্য ও বাবলূ কর্মকার মহাস্থানে জরুরি কাজের কথা বলে বাড়ি ছেড়ে যান। এরপর তারা বাড়িতে ফেরেনি। আমরা লোকজনের কাছে জানতে পারি তারা ভারতের শিলিগুড়ি চলে গেছেন। তারা ভারতে গিয়ে আমাদেরকে ফোনে জানান, তারা আগেই ভারতে জমি কিনে রেখেছেন। স্ত্রীদের সেখানে নিয়ে যাবে না। তারা ভারতে নতুন করে সংসার করবে । প্রয়োজনে তিন সন্তান দিপালী রানীর দুই মেয়ে রিংকি কর্মকার (৮) টুসু কর্মকার (৪) এবং তপতী রানীর মেয়ে পিংকি কর্মকারকে (৫) বিক্রি করে দেবেন। এতে দিপালী ও তপতী রানী অসহায় হয়ে পড়েছেন। তারা এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
উপরে