আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১১:৩৭

বাহুবলে চার শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় আটক পাঁচ

বিডিটাইমস ডেস্ক
বাহুবলে চার শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় আটক পাঁচ

হবিগঞ্জের বাহুবলে চার শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পাঁচ ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত শিশু মনিরের বাবা আফজাল মিয়া তালুকদারের সাধারণ ডায়রির পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার রাতে অভিযান চালিয়ে মাতব্বর আব্দুল আলীসহ এ পাঁচজনকে আটক করে র‌্যাব ও পুলিশ। আটককৃতরা হলেন-জুয়েল ও আব্দুল আলী। এরা বাবা-ছেলে। এছাড়া অপর দুজন হলেন-বাচ্চু, আরজু। পুলিশ তদন্তের স্বার্থে একজনের নাম প্রকাশ করেনি। বাহুবল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বাহুবল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন জানান, বুধবার সন্ধ্যায় ময়নাতদন্ত শেষে লাশগুলো তাদের পরিবারের স্বজনদের কাছে হস্তাস্তর করা হয়েছে। বুধবার রাতেই শিশুদের লাশ দাফন করা হবে।

তিনি জানান, নিহত ৪ শিশুর পরিবারকে হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৫০ হাজার টাকা ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়া হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম ও পুলিশ সুপার জয় দেব কুমার ভদ্র লাশ হস্তান্তরের সময় নিহতের পরিবারের হাতে এ অনুদান তুলে দেন।

আফজাল মিয়া তালুকদার বলেন, ‘গাছ কাটার ঘটনায় আব্দুল আলীর সঙ্গে আমার মাসখানেক আগে সংঘর্ষ বাঁধে। তারই জের ধরে নিষ্পাপ শিশুগুলোকে হত্যা করেছে পাষণ্ড আব্দুল আলীরা।’

তিনি অভিযোগ করেন, নিখোঁজের ঘটনায় শনিবার বাহুবল থানায় জিডি করতে গেলে বাহুবল থানার ওসি মোশারফ হোসেন তার সঙ্গে বাজে ব্যবহার করেছেন।

আফজাল মিয়া বলেন, ‘জিডি করতে গেলে ওসি আমাকে বললেন, ঝাড়ফুঁক করেন, তাবিজ করেন। আপনাদের ছেলেরা ফিরে আসবে।’

গত শুক্রবার বিকেলে মাঠে খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয় ওই চার শিশু। নিখোঁজের ৫ দিন পর বুধবার সকালে উপজেলার সুন্দ্রাটিকি এলাকা থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত শিশুরা হলো― উপজেলার ভাদেশ্বর ইউনিয়নের সুন্দ্রাটিকি গ্রামের মো. ওয়াহিদ মিয়ার ছেলে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র জাকারিয়া আহমেদ শুভ (৮), তার চাচাত ভাই আব্দুল আজিজের ছেলে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র তাজেল মিয়া (১০), আবদাল মিয়ার ছেলে প্রথম শ্রেণির ছাত্র মনির মিয়া (৭) এবং তাদের প্রতিবেশী আব্দুল কাদিরের ছেলে ইসমাইল হোসেন (১০)।

 

বিডিটাইমস২৬৫ডটকম/জেডএম

উপরে