আপডেট : ২৯ জানুয়ারী, ২০১৬ ২০:৩৯

সুযোগ সন্ধানী নেতারা আতঙ্কে, চলছে শুদ্ধি অভিযান

বরিশাল প্রতিনিধি
সুযোগ সন্ধানী নেতারা আতঙ্কে, চলছে শুদ্ধি অভিযান

বিএনপির কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বরিশালে শুরু হয়েছে শুদ্ধি অভিযান। আর এ কারণে বিভিন্ন সময়ে সংগঠন বিরোধী কার্যক্রম পরিচালনা, দলীয় কর্মকাণ্ডে নিষ্কৃয়তাসহ বিভিন্ন অভিযোগে অভিযুক্ত নেতাকর্মীরা বহিষ্কার আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন।    

ইতোমধ্যে সংগঠন বিরোধী কার্যক্রম এর সাথে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে অর্ধশতাধিক নেতার তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। ওই তালিকায় উপজেলা, জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাদের কাছে রয়েছে।যা ইতোমধ্যে কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে ।তবে গোপনীয়তার স্বার্থে এ তালিকা প্রকাশ করা হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র বেশ কয়েকজন নেতা।  

জানা গেছে, ২০১৪ সালের জানুয়ারী মাস থেকে সরকার বিরোধী আন্দোলন কর্মসূচি পালন করে বিএনপি। কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচিগুলো একেবারেই ঢিলেঢালাভাবে পালন করা হয়।

পরবর্তীতে কেন্দ্র থেকে নির্দেশ দেয়া হয়, যারা আন্দোলন কর্মসূচিতে অংশ নেয়নি কিংবা সংগঠন বিরোধী কার্যক্রম করেছে তাদের একটি তালিকা করে পাঠাতে।

পরে নতুন কর্মসূচি এবং দলীয় সিনিয়র নেতারা আত্মগোপনে থাকার কারণে তা আর সম্ভব হয়ে উঠেনি।

এদিকে পৌরসভা নির্বাচনে দলের ঘোষিত প্রার্থীদের বিরুদ্ধে অবস্থান, দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করা এবং সরকার দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার অভিযোগ ওঠে বেশ কিছু নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে। বিষয়টি কেন্দ্রীয় নেতাদেরও নজরে এলে পুণরায় তাদের তালিকা দিতে নির্দেশ দেয় কেন্দ্র।

নির্দেশনা অনুযায়ী প্রায় অর্ধশত নেতাকর্মীর তালিকা করে কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে গত বৃহস্পতিবার বাবুগঞ্জ উপজেলার চাঁদপাশা ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আলাউদ্দিন রাজকে বহিষ্কার করে উপজেলা বিএনপি।

তিনি সাংগঠনিক কোন কার্যক্রমে উপস্থিত থাকতেনই না বরং দলের নেতাদের মধ্যে বিবেধ তৈরীর করছিলেন বলে অভিযোগ উঠেছিল।  

বরিশাল জেলা (উত্তর) বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান বলেন, “বিএনপির পুর্নগঠন চলছে। যাদের বিরুদ্ধে সংগঠন বিরোধী কার্যক্রমের অভিযোগ রয়েছে তাদের দল থেকে বহিষ্কারের জন্য কেন্দ্র নির্দেশনা দিয়েছে”। 

দক্ষিন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম শাহীন বলেন, “দলের মধ্যে এখন আর কোন সুবিধাবাদী কিংবা সুযোগ সন্ধানীরা স্থান পাবে না। যারা দলের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে তাদের কোনক্রমেই ছাড় দেয়া হবে না। 

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও বরিশাল মহানগর সভাপতি এ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, “ইতোপূর্বে যারা সংগঠন বিরোধী কাজ করেছে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে কেন্দ্রের নির্দেশনা অনেক আগেই দেয়া রয়েছে”।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে

 

উপরে