আপডেট : ২৯ জানুয়ারী, ২০১৬ ২০:২০

প্রেমিক মরলো সড়ক দুর্ঘটনায়, খবর শুনে প্রেমিকার আত্মহত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী
প্রেমিক মরলো সড়ক দুর্ঘটনায়, খবর শুনে প্রেমিকার আত্মহত্যা

রাজশাহীতে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রেমিকের মৃত্যুর সংবাদ শুনে তার প্রেমিকা আত্মহত্যা করেছে। ঘটনা ঘটেছে ২৯ জানুয়ারি শুক্রবার দুপুরে রাজশাহী নগরীর মতিহার থানা এলাকায়।

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত প্রেমিকের নাম তুর্য হোসেন। সে নগরীর ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর জেহের হোসেন সুজার ছেলে এবং ডাসমারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। অপরদিকে তার মৃত্যুর খবর শুনে আতহত্মহত্যাকারী প্রেমিকার নাম কেয়া খাতুন। সেও একই স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রী ও নগরীর ডাসমারী এলাকার আব্দুল মান্নানের মেয়ে।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, গতকাল দুপুর পৌনে একটার দিকে তুর্য মোটরসাইকেলযোগে বিনোদপুর বাজার থেকে বাড়িতে ফিরছিল। এসময় মন্ডলের মোড় এলাকায় ইটবাহী একটি ট্রলির সঙ্গে তার মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগে। এতে গুরুতর আহত হয় তুর্য।

পরে স্থানীয়রা তাকে দ্রæত উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তুর্যকে মৃত ঘোষণা করেন। এদিকে তুর্যের মৃত্যুর খবর শুনে তার প্রেমিকা কেয়া খাতুন নিজ শয়নকক্ষে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। পরে দ্রুত তাকে পরিবারের লোকজন উদ্ধার করে রামেক হাসপাতালে নেওয়ার পথে সেও মারা যায়।

নগরীর মতিহার থানার ওসি হুমায়ন কবির বলেন, দুটি ঘটনার বিষয়ে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয় হবে। এদিকে রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার খড়খড়ি বাইপাস এলাকায় একই দিন দুপুরে বাসের ধাক্কায় এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন।

নিহত মোটরসাইকেল আরোহীর নাম আব্দুল আজিজ (৫০)। তার বাড়ি একই এলাকায়। রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদত হোসেন খান জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খরখড়ি পেট্রোলপাম্প থেকে মোটরসাইকেলে তেল নিয়ে বের হচ্ছিলেন আব্দুল আজিজ। এ সময় পেছন থেকে আসা একটি দ্রূতগামী যাত্রীবাহী বাস গিয়ে তাঁকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য তার মরদেহ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

উপরে