আপডেট : ৪ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৮:৩৩

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন নিয়ে বরিশালে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

বরিশাল প্রতিনিধি
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন নিয়ে বরিশালে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

বরিশালে ছাত্রলীগের প্রতিষ্টা বার্ষিকী পালন নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা দাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সকাল দশটায় সরকারি বিএম কলেজে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ছাত্রলীগের ৬৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে সরকারি বিএম কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক মঈন তুষার ও নাহিদ সেরনিয়াবাত পৃথক কর্মসূচির আয়োজন করে।

সকাল সারে ৯টায় কলেজের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নাহিদ সেরনিয়াবাত ও তার অনুসারীরা এবং একই সময় কলেজের জিরো পয়েন্টে মঈন তুষার এবং তার অনুসারীরা কেক কাটার আয়োজন করে। দুটি আয়োজনেই পর্যায়ক্রমে অতিথি হিসেবে থেকে কেক কাটেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইমামুল হক ও কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক স.ম ইমানুল হাকিম। এরপর নাহিদ সেরনিয়াবাতের অনুসারীরা কলেজের শহীদ মিনার থেকে এবং মঈন তুষারের অনুসারীরা কলেজের জিরো পয়েন্ট থেকে শুভেচ্ছা মিছিল বের করে। ওই মিছিল কলেজের গ্যারেজ গেটের সামনে আসলে উভয় গ্রুপ মুখোমুখি হয়। এসময় এক গ্রুপ অপর গ্রুপের সাথে প্রথমে বাক বিতন্ডা এবং ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় লিপ্ত হয়। পরে র‌্যাব ও পুলিশ লাঠিচার্য করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সরকারি বিএম কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক মঈন তুষার বলেন, আমরা মিছিল নিয়ে গেলে উল্টো দিক থেকে আসা একটি মিছিল আমাদের গতিরোধ করার চেস্টা করে। এ নিয়ে একটু বাকবিতন্ডা হয়েছে।

অপর যুগ্ম আহবায়ক নাহিদ সেরনিয়াবাত বলেন, আমাদের কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবেই চলছিলো। কিন্তু মিছিল বের করলে তাতে বহিরাগত কিছু সন্ত্রাসী হামলার চেস্টা করে। তাদেরকে প্রতিহত করা হয়েছে। এর বেশী কিছু নয়।

কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক স.ম ইমানুল হাকিম বলেন, শুনেছি মিছিল বের হলে ছাত্রলীগের মধ্যে একটু ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। যদিও তা আবার পরে পুলিশ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিছে।

কোতয়ালী থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন বলেন, মিছিল নিয়ে বের হলে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ মুখোমুখি হয়। এসময় উভয় গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে পুলিশ তা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ক্যাম্পাসে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন রয়েছে বলে তিনি জানান।

উপরে