আপডেট : ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৫ ১৪:২৬

অনিয়মে ১৩ কেন্দ্রে ভোট স্থগিত

বিডিটাইমস ডেস্ক
অনিয়মে ১৩ কেন্দ্রে ভোট স্থগিত

দলীয় প্রতীকে প্রথমবারের মতো আয়োজিত পৌর ভোটের প্রথম পাঁচ ঘণ্টায় জোর করে ব্যালটে সিল মেরে বাক্স ভর্তি করার অভিযোগ আর সংঘর্ষের কারণে নয় পৌরসভার ১৩টি কেন্দ্রে ভোট স্থগিত করা হয়েছে।

এর মধ্যে চট্টগ্রামের চন্দনাইশে তিনটি, মাদারীপুরের কালকিনিতে দুটি, নড়াইলের কালিয়া পৌরসভায় দুটি এবং কুমিল্লার বরুড়া, ময়মনসিংহের ভালুকা, নরসিংদীর মাধবদী, জামালপুরের সরিষাবাড়ী, বরগুনা এবং কুয়াকাটা পৌরসভার একটি করে কেন্দ্র সংঘর্ষের কারণে স্থগিত হয়ে গেছে।

চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে ১০ পৌরসভার মধ্যে চন্দনাইশে সকাল ৮টার আগেই জোর করে ব্যালটে সিল মেরে বাক্স ভর্তির অভিযোগে তিনটি কেন্দ্রে গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।  

কেন্দ্র তিনটি হল-আফলাতুন চৌধুরী ফোরকানিয়া মাদ্রাসা, গাছবাড়িয়া এ এন হেজ উচ্চ বিদ্যালয় এবং উত্তর গাছবাড়িয়া বদুরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

এর মধ্যে প্রথম দুটি কেন্দ্রে প্রায় ৯০০ ব্যালটে সিল মারা হয়েছিল বলে নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন সকালে পটিয়ার আল্লাই ওখারা ফোরকানিয়া মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্রে পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বলেন, “প্রকাশ্যে সিল মেরে বাক্স ব্যালট ভরার কারণে রিটার্নিং কর্মকর্তা নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে দুটি কেন্দ্র বন্ধ করে দিয়েছেন।”

পরে সকাল ১০টার দিকে একই কারণে উত্তর গাছবাড়িয়া বদুরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয় বলে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল লতিফ জানান।

মাদারীপুর

আগেই সিল মেরে বাক্স ভরার ঘটনায় মাদারীপুরের কালকিনি পৌরসভার দুটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত হয়েছে।

জেলার রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন জানান, ছয় নম্বর ওয়ার্ডের কাষ্ঠগড় উচ্চ বিদ্যালয় ও আট নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ জনারদন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে কয়েকটি ব্যালট বাক্স পাওয়া যায় যেগুলোতে প্রায় ১৩০০ সিল দেওয়া ব্যালট পেপার ঢুকিয়ে রাখা হয়েছিল।

সকালে রিটার্নিং কর্মকর্তা ব্যালটসহ বাক্সগুলো জব্দ করেন এবং কেন্দ্র দুটিতে ভোট গ্রহণ স্থগিত করেন।

জনারদন্দি বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান জানান, তার কেন্দ্রে নৌকা প্রতিকে সিল দেওয়া ব্যালট দিয়ে বাক্স ভরে রাখা হয়েছিল।

কুমিল্লা

ভোট শুরুর আগে ব্যালটে সিল দেওয়ায় ভোট স্থগিত হয়েছে কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার লতিফপুর কেন্দ্রে।

বরুড়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লুৎফুন্নাহার নাজিম সাংবাদিকদের জানান, সকাল ৭টার দিকে একদল যুবক কেন্দ্রে গিয়ে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে সিল দেওয়া শুরু করলে আইশৃঙ্খলা বাহিনী ও কেন্দ্রে থাকা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ধাওয়ায় তারা পালিয়ে যায়।

পরে তিনি গিয়ে সিল দেওয়া ১২শ ব্যালট পেপার উদ্ধার করে সেগুলো বাতিল করেন এবং ওই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত করেন বলে জানান ইউএনও।  

নড়াইল

ভোটে অনিয়মের অভিযোগে নড়াইলের কালিয়া পৌরসভার পূর্ব কালিয়া সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে।

আর দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষের পর বন্ধ রাখা হয়েছে কালিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ।

সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার হাসানুর জামান জানান, নৌকা প্রতীকের  প্রার্থীর পক্ষে ব্যালটে সিল মেরে বাক্স ভর্তি করার সময় একজনকে আটক করার পর তার কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়।

জালিয়াতির অভিযোগে মোতাসেফ বিল্লাহ (২৫)  নামের ওই আওয়ামী লীগ কর্মীকে ছয় মাসের সাজা দেন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হারুন আর রশিদ।

পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইটিং অফিসার বীরেন্দ্র নাথ মজুমদার জানান, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ফসিয়ার রহমান ও জিল্লুর রহমান মোল্যার সমর্থকরা ভোট চলাকালে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এরপর কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়।  

এতে ফসিয়ার রহমানসহ পাঁচ জন আহত হন। তাদের কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

ফসিয়ারের ভাই রবিউল ইসলাম অভিযোগ করেন, জিল্লুর রহমানের সমর্থকরা ‘ভোট কাটার’ চেষ্টা করলে সংঘর্ষ বাধে।

নরসিংদী

মাধবদী পৌরসভা নির্বাচনে একটি কেন্দ্র দখল করে ব্যালটে সিল মারার ঘটনায় ভোটগ্রহণ স্থগিতের পর জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে হামলা ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে মাধবদী পৌরসভার ফজলুল করিম কিন্ডারগার্টেন স্কুল কেন্দ্রে এ ঘটনায় সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা নজরুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

এলাকাবাসীর ভাষ্য, আওয়ামী লীগের মেয়র পদপ্রার্থী হাজী মোশাররফ হোসেন এবং কাউন্সিলর প্রার্থী ওবায়দুর রহমান টিটুর সমর্থকরা কেন্দ্র দখলে নিয়ে ব্যালটে সিল মেরে বাক্স ভরার চেষ্টা করেন। পরে তারাই সেখানে হামলা ও ভাংচুর চালায়।

ভোটগ্রহণ স্থগিত ঘোষণার পর নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, “যেভাবে হামলা হলো- আমি তো মরেই যাইতাম।”

ফজলুল হক কিন্ডারগার্টেন স্কুলের একজন কর্মচারী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা আইয়া নিজের হাতে সিল মারছে। এইটা নিয়ে মারামারি লাগছে।”

বরগুনা

বরগুনা পৌরসভায় কেন্দ্র দখল করে আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থীর পক্ষে সিল মারার সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষের পর গগণ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। 

রিটার্নং অফিসার মো. আবদুল্লাহ জানিয়েছেন, সংঘর্ষের ঘটনায় নির্বাচনী কর্মকর্তাসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

তিনি বলেন, “সকালে ভোট শুরুর পর নৌকার প্রার্থী কামরুল আহসান মহারাজের লোকজন গগন মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র দখল করে সিল মারা শুরু করে। অন্য মেয়র প্রার্থীর সমর্থকরা বাধা দিলে গণ্ডগোল শুরু হয়।”

কুয়াকাটা

আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় কুয়াকাটা পৌরসভার পানজুপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. নাজমুল কবির জানান, সকালে ভোট শুরুর দুই ঘণ্টার মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হলে সকাল ১০টার কেন্দ্রটি স্থগিত করা হয়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশকে ২৫ রাউন্ড গুলি ছুড়তে হয়েছে বলে পটুয়ালী সদর থানার ওসি কে এম তারিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন।      

ময়মনসিংহ

জেলার ভালুকা পৌরসভায় ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনায় দক্ষিণ ভালুকা সরকারি প্রাথমিক স্কুল কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন।

রিটার্নিং অফিসার কামরুল আহসান জানান, বেলা ১১টার দিকে একদল লোক কেন্দ্রে ঢুকে ব্যালট পেপারসহ অন্যান্য সরঞ্জাম ছিনিয়ে নেয়।

তবে তারা কোনো দল বা প্রার্থীর সমর্থক- সে বিষয়ে কিছু বলেননি এই নির্বাচনী কর্মকর্তা।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মামুনুর রশিদ জানান, এ ঘটনায় সন্দেহভাজন পাঁচজনকে পুলিশ আটক করেছে।

জামালপুর

জেলার ছয় পৌরসভার মধ্যে সরিষাবাড়ীর বাউসি বাঙ্গালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হওয়ায় ওই কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোশারফ হোসেন সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এআর

 

 

উপরে