আপডেট : ২৫ ডিসেম্বর, ২০১৫ ১৪:০৫

প্রার্থনা উৎসবের বড়দিন

বিডিটাইমস ডেস্ক
প্রার্থনা উৎসবের বড়দিন

চার্চ আর হোটেলগুলো সেজেছে রঙিন সাজে।কেউ সেজেছেন সান্তাক্লজ, সাজানো হয়েছে প্রতীকী গোশালা, ক্রিসমাস ট্রিসহ বহু অনুষজ্ঞ।

পাপমুক্তি, সারা বিশ্বের মানুষের জন্য ভ্রাতৃত্ব ও শান্তি কামনা করে সকাল থেকেই চলছে প্রার্থনা, আগত ভক্তদের হাতে  চকলেট তুলে দিচ্ছেন সান্তাক্লজ ।

উৎসব প্রার্থনা আর নানা আয়োজনে সারাদেশে পালিত হচ্ছে খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শুভ বড়দিন।
এই পুণ্যের দিনে খ্রিষ্টধর্মের প্রবর্তক যিশুখ্রিষ্ট ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে বেথলেহেমের এক গোশালায় মাতা মেরির গর্ভ হতে ভূমিষ্ট হন। খ্রিষ্টধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, যিশুখ্রিষ্ট জন্ম নিয়েছিলেন সৃষ্টিকর্তার মহিমা প্রচার এবং মানবজাতিকে সত্য ও ন্যয়ের পথে পরিচালিত করার জন্য। যিশুর আগমনে পাপমুক্ত হয় বিশ্বের মানুষ।

বড়দিন উপলক্ষে পৃথক বাণীতে দেশের খ্রিষ্টধর্মাবলম্বীদের প্রতি শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ ও বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

এ ছাড়া শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বাংলাদেশ খ্রিষ্টান অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ও সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী প্রমোদ মার্কিন এবং সংগঠনটির মহাসচিব নির্মল রোজারিও।

বড়দিন উপলক্ষে এক যৌথ বিবৃতিতে তাঁরা বলেন, সংঘাতপূর্ণ অশান্ত এই পৃথিবীতে আজ যিশুখ্রিষ্টের আদর্শ ও শিক্ষা অনুসরণ করা জরুরি হয়ে পড়েছে। শান্তি ও নায্যতা প্রতিষ্ঠায় যিশুখ্রিষ্টের শিক্ষা বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে।

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে

উপরে