আপডেট : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৬:০০

টুকরো টুকরো রাজ্যে বা দেশে আমি বিশ্বাসী নই

তাসলিমা নাসরিন
টুকরো টুকরো রাজ্যে বা দেশে আমি বিশ্বাসী নই

দেশপ্রেমিক মানে যদি যা কিছুই ঘটুক দেশকে সমর্থন করতে হবেই, দেশের শত্রুর বিরুদ্ধে লড়তে হবে, তাহলে আমি দেশপ্রেমিক নই। জাতীয়তাবাদী মানে যদি যে করেই হোক দেশের সার্বভৌমত্বের পক্ষে দাঁড়াতে হবে, তাহলে আমি জাতীয়তাবাদীও নই। টুকরো টুকরো রাজ্যে বা দেশে আমি বিশ্বাসী নই। দেশে দেশে যে সীমানা, যে কাঁটাতার-- তা আমি জরুরি বলে মনে করি না। আমি পৃথিবীর সব দেশকে একত্র করার পক্ষে। যে ইউরোপ এক সময় যুদ্ধে মেতে থাকতো, সেই ইউরোপও আজ এক হয়ে গেছে। বিভেদ বিচ্ছেদ ভুলে পরস্পরের সহযোগিতায় সামনে পা ফেললে যাত্রা নিরাপদ হওয়ার সম্ভাবনা সবসময়ই বেশি। আমরা বেড়াল জাতের প্রাণী নই। নিজের চৌহদ্দিতে একা একা বাস করা আমাদের রীতি নয়। আমাদের পূর্বপুরুষ তো সদলবলেই আফ্রিকা ছেড়ে অজানা বিশ্বের দিকে পা বাড়িয়েছিল। আমরা একা একা বিবর্তিত হইনি। শুরু থেকেই আমরা একসঙ্গে থাকার পক্ষে। রাজনীতিকরা আমাদের আলাদা করেছে। এক মানুষজাতকে ভিন্ন ভিন্ন ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতে ভাগ করেছে। দেশের সীমানা এঁকে দিয়েছে। বিচিত্র মানচিত্র দিয়েছে। ভুলটা রাজনীতিকদেরই।

আমি যে দেশে জন্মেছি, বেড়ে উঠেছি, সে দেশে যা কিছু অবিচার অত্যাচার দেখি, প্রতিবাদ করি। কিন্তু এমন নয় যে দুনিয়ার অন্য কোথাও অবিচার অত্যাচার দেখলে প্রতিবাদ করি না। কেন এত রুখে উঠি, কেন ঘরের খেয়ে বনের মোষ তাড়াই! তাড়াই কারণ পৃথিবীটা সুন্দর হোক চাই। পৃথিবীতে মানুষ ভালোবাসা পেতে পেতে, সুখ আনন্দ পেতে পেতে বাঁচুক, চাই। জীবন তো একবারের জন্যই আসে। জীবনের মতো অমূল্য সম্পদকে হিংসে, যুদ্ধ আর বর্বরতা দিয়ে মলিন করার, অশান্তিময় করার, দুর্যোগ-দুর্দিন-দুশ্চিন্তা দিয়ে নষ্ট করার কোনও অর্থ হয় না।

আমি তাড়াতে চেয়েছি যাবতীয় অসভ্যতা, আর আমাকে বাহবা না দিয়ে উল্টে আমাকেই দেশ থেকে তাড়িয়েছে সরকার। উগ্রপন্থী মৌলবাদীদের মুখে হাসি ফোটানোর জন্যই। আমি নির্বাসন দণ্ড ভোগ করছি, একই সঙ্গে পৃথিবীটাকে আরও কাছ থেকে দেখার, আরও আপন করে নেওয়ার সুযোগ পেয়েছি। এক অঞ্চলকে আঁকড়ে ধরে থাকলে আরেক অঞ্চল সম্পর্কে অজ্ঞতাই রয়ে যায়। আমার কাছে সত্যি বলতে কোনও অঞ্চলই আলাদা নয়। সবই পৃথিবীর উত্তর দক্ষিণ, অথবা পূর্ব পশ্চিম।

ভারতবর্ষে ইতিমধ্যে কিছু ঘটনা ঘটেছে, যা আমাকে স্বস্তি দিচ্ছে না। আমি যেহেতু চাই গোটা পৃথিবীটাই এক হয়ে যাক, গোটা উপমহাদেশই এক হয়ে যাক, আমি নিশ্চয়ই চাই না ভারতবর্ষ টুকরো টুকরো হোক। যারা দেশকে টুকরো করতে চায়, তাদের সঙ্গে আমি নেই। আমি ভারতের দু’টুকরো হওয়াকে আজও মেনে নিতে পারিনি। দেশ ভাগের ফলে আরও ধর্ম, আরও মৌলবাদ, আরও হিংস্রতা, আরও শত্রুতা, আরও ক্ষুদ্রতা জাঁকিয়ে বসেছে উপমহাদেশে।

দিল্লির জওহরলাল নেহেরু (জেএনইউ) ইউনিভার্সিটির ছাত্র কানহাইয়া কুমারকে কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী আফজাল গুরুর ফাঁসির বিপক্ষে শ্লোগান দেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। কানাহাইয়া দেশদ্রোহিতা করেছে, সন্ত্রাসীর পক্ষ নিয়েছে, বিচ্ছিন্নতাবাদে ইন্ধন জোগাচ্ছে। এই হলো জেএনইউ আদি থেকেই বাম রাজনীতির পীঠস্থান। ডানপন্থী রাজনীতির বিরুদ্ধে মিছিল মিটিং প্রায়ই হয় ওখানে। আফজাল গুরুকে ফাঁসি দেওয়া হয়েছে ২০০১ সালে ভারতের লোকসভায় যে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছিল তার নীল-নকশা আঁকার জন্য। কিন্তু পরিকল্পনাটা আফজাল গুরুরই, এ বিষয়ে খুব একটা প্রমাণ নেই। আফজাল গুরুর কমপিউটারে জাতীয় সংসদের ভেতর আর বাহিরের ছবি ছিল। সংসদ ভবনে ঢোকার নকল আইডির কপি ছিল। হয়তো আফজাল গুরু বন্দি থাকাকালীন কেউ তার কমপিউটারে ওসব ঢুকিয়ে দিয়েছে, এমন প্রশ্নও কেউ কেউ উঠিয়েছে। যারা গুরুকে লোকসভায় সন্ত্রাসী হামলার নেপথ্য নায়ক হিসেবে মানতে রাজি নয়, যেহেতু এর পক্ষে শক্তপোক্ত কোনও প্রমাণ নেই-- তারা থেকে থেকেই বলে আফজাল গুরুর ফাঁসি দিয়ে ভারত নিজের গণতন্ত্রকে কলঙ্কিত করেছে। গুরুর ফাঁসি নিয়ে বিতর্ক নতুন নয়। নামী দামী কিছু বুদ্ধিজীবিও আফজাল গুরুর ফাঁসির বিপক্ষে। কিন্তু এই বিতর্কিত ফাঁসির বিপক্ষে স্লোগান দিলে গ্রেফতার হতে হবে কেন? দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত সে, এমন অভিযোগই বা উঠবে কেন? জেএনইউতে যারা আফজাল গুরুর ফাঁসির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছিল, তারা কি সকলেই দেশদ্রোহী? আমার কিন্তু তা মনে হয় না। আমি যে বাংলাদেশ সরকারের, বাংলাদেশের দূর্নীতিবাজ, ফতোয়াবাজ, নারীবিদ্বেষী কুলাঙ্গার, ধর্ষক, খুনী, শোষক, শাসকদের উঠতে বসতে গালি দিচ্ছি, সেটা কি দেশটাকে ঘৃণা করি বলি, নাকি ভালোবাসি বলে? ভালোবাসি বলে চাই দেশটা ভুলত্রুটি মুক্ত হয়ে সুস্থ সুন্দর হোক, বাসযোগ্য হোক। বিখ্যাত যুক্তিবাদী লেখক টমাস পেইনকে সেই সতেরোশ তিরানব্বই সালে গ্রেফতার করা হয়েছিল তাঁর ‘মানবাধিকার’ বইটি লেখার কারণে। সতেরোশ’ তিরানব্বইয়ের পর বদলানোর কথা তো পৃথিবী। মাঝে মাঝে কিছু কিছু দেশের কীর্তিকলাপ দেখে মনে হয় সময় বদলায়নি।

ধরা যাক, কানহাইয়া আর তার সঙ্গীরা দেশপ্রেমিক নয়, জাতীয়তাবাদী তো নয়ই। তাতে কার কী অসুবিধে? তাদের কি অধিকার নেই দেশের সমালোচনা করার, দেশকে অপছন্দ করার, অথবা ঘৃণা করার? দেশে স্বাধীনভাবে বাস করতে হলে কি দেশকে ভালোবাসতেই হবে? এই শর্ত কি গণতন্ত্রের? নাকি গণতন্ত্র ভিন্ন ভিন্ন মত থাকার অধিকারের কথা বলে? দেশকে অখণ্ড রাখতে চাইলেই তুমি দেশের ভালো চাও, তা নয়তো তুমি দেশদ্রোহী, তোমাকে শাস্তি দিতে হবে—এ তো সেই অত্যাচারী রাজাদের আমলের কাহিনী, যখন গণতন্ত্র বলে কিছুর ধারণা ছিল না, মানবাধিকারের কিছুই মানুষ জানতো না। রাজাকে কুর্ণিশ করো, নয়তো শূলে চড়ো। এই ছিল নিয়ম। এই একবিংশ শতাব্দীতে সভ্য পথিবীর গণতান্ত্রিক রীতিনীতিকে রাজতান্ত্রিক রীতিনীতিতে রূপান্তরিত হলে চলবে কেন, নির্বাচিত সরকারকে অত্যাচারী রাজার ভূমিকায় নামলে চলবে কেন! আমরা তো সামনে এগোচ্ছি। পেছোবো কেন? কিছু কূপমণ্ডুক আমাদের পেছনে ঠেলতে চায়। সে কারণে ওই কূপমণ্ডুককে জেলখানায় ভরে রাখলে কি পেছনে ঠেলতে চাওয়ার লোকের সংখ্যা কমে যাবে? শিক্ষা দীক্ষায় ভুল থাকলেই নির্বুদ্ধিতা বাড়ে। জেল জরিমানা ফাঁসি নির্বাসন দিয়ে মানুষকে আলোকিত করা যায় না।

গণতন্ত্র যারা মানে বলে বড়াই করে, তাদের অধিকাংশই দেখেছি বাক স্বাধীনতা মানে না। তারাও বলে, মত প্রকাশের অধিকারের নামে যা ইচ্ছে তা বলা চলবে না। তারা জানে না, যে, যা ইচ্ছে তাই বলার নামই বাক স্বাধীনতা। ভিন্ন মত প্রকাশ করার অধিকার চাই বলেই চাই মত প্রকাশের অধিকার। সবাই যে মত মেনে নেয়, সেই মতকে প্রকাশের জন্য আলাদা করে অধিকার চাওয়ার দরকার হয় না। জেএনইউএর কানহাইয়া সম্ভবত বিশ্বাস করেন ভারত থেকে কাশ্মিরের আলাদা হয়ে যাওয়া উচিত। আমার মতের সঙ্গে কানহাইয়ার মত মেলে না। কিন্তু তারপরও আমি মনে করি না কানহাইয়াকে গ্রেফতার করা, কোনও কারণে, উচিত। যতক্ষণ না কানহাইয়া ভায়োলেন্স করছে, যতক্ষণ না সে সন্ত্রাসী কার্যকলাপে সরাসরি যোগ দিচ্ছে, ততক্ষণ তাকে গ্রেফতার করাটা গণতন্ত্র বিরোধী।

কেউ ধর্মের বিরুদ্ধে বললে বলা হয় যে ‘কারও নিন্দায় বা সমালোচনায় ধর্মের কিছু যায় আসে না। ধর্ম মানুষের চেয়েও অনেক শক্তিশালী। মানুষের শক্তি নেই ধর্মকে ভাঙার বা মচকাবার’! এ কথা প্রচুর লোক বিশ্বাস করে। দেশের বেলায় একইরকম কেন বলা হয় না? কেন বলা হয় না, ‘‘কারও নিন্দায় বা সমালোচনায় দেশের কিছু যায় আসে না। দেশ মানুষের চেয়েও অনেক শক্তিশালী। মানুষের শক্তি নেই দেশকে ভাঙার বা মচকাবার’! কেউ একজন একটা দেশকে টুকরো টুকরো করতে চাইলেই কি পারে? পারে না। যদি পারে, তাহলে বুঝতে হবে, দেশটা এমনিতেই ভঙ্গুরই ছিল।

লেখক : নির্বাসিত লেখিকা

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/মাঝি

উপরে