আপডেট : ২২ মার্চ, ২০১৬ ১০:২৪

জনবল সংকটে আইডিআরএ

অনলাইন ডেস্ক
জনবল সংকটে আইডিআরএ

পাঁচ বছরেও বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) জনবলকাঠামো সরকার অনুমোদন করছে না।
কারণ জানতে চাইলে আইডিআরএর চেয়ারম্যান এম শেফাক আহমেদ বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমার কোনো জবাব নেই।’ তিনি বলেন, আইডিআরএ জনবল সংকটে ভুগছে, যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে গোটা বিমা খাতেই।
স্বীকার করে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের যুগ্ম সচিব শফিকুল ইসলাম বলেন, যেকোনো জনবলকাঠামো অনুমোদনের প্রক্রিয়াই জটিল। তবে এত দিনেও তা না হওয়াটা দুঃখজনক।
আইডিআরএর আয়োজনে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ২৩ মার্চ বুধবার থেকে প্রথমবারের মতো তিন দিনব্যাপী বিমা মেলা শুরু হচ্ছে। এ উপলক্ষে গতকাল সোমবার আইডিআরএ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা উঠে আসে।
মেলার স্লোগান হচ্ছে, ‘নিরাপদ ভবিষ্যতের জন্য বিমা’। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত প্রধান অতিথি থাকবেন। বিশেষ অতিথি থাকবেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী মো. আবদুল মান্নান এবং ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব মো. ইউনুসুর রহমান।
সংবাদ সম্মেলনে মেলা আয়োজনের যৌক্তিকতা তুলে ধরেন আইডিআরএর সদস্য ও বিমা মেলা কমিটির সভাপতি মো. কুদ্দুস খান। এ সময় বিমা খাতের নানা দিক নিয়ে কথা বলেন আইডিআরএর অপর দুই সদস্য জুবের আহমেদ খান ও সুলতান-উল-আবেদীন মোল্লা, বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য ও গ্রিন ডেল্টা ইনস্যুরেন্সের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ফারজানা চৌধুরী এবং পপুলার লাইফের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা বি এম ইউসুফ আলী।
একজন চেয়ারম্যান ও চারজন সদস্য নিয়ে ২০১১ সালে আইডিআরএর যাত্রা শুরু হলেও গোটা বিমা খাত ভালোভাবে দেখভালের জন্য সংস্থাটিতে কোনো জনবল দেয়নি সরকার। অথচ সরকারি দুটি করপোরেশনের পাশাপাশি ৭৫টি বেসরকারি বিমা কোম্পানির নিয়ন্ত্রক আইডিআরএ।
সংবাদ সম্মেলনে শেফাক আহমেদ জানান, বিলুপ্ত বিমা অধিদপ্তরের কর্মচারীসহ ৫০ জনেরও কম জনবল নিয়ে সংস্থাটি পরিচালনা করছেন তিনি। ব্যাংক খাতের জন্য যেখানে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মোট জনবল সাত হাজারের কাছাকাছি।
অনেক কিছু করার থাকলেও লোকবলের অভাবে বিমা খাত ঠিকমতো নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না এবং এ কারণে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে স্বীকার করেন শেফাক আহমেদ।
সংবাদ সম্মেলনের পর ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ২০১৪ সালের জুনেই আইডিআরএর ১৯৫ জনের জনবলকাঠামো অনুমোদন করে। পরে অবশ্য কমিয়ে তা ১৫৫ করা হয়। অর্থ বিভাগের পক্ষ থেকে একটি প্রজ্ঞাপন জারি হবে, কিন্তু তা আর হচ্ছে না।
এ ব্যাপারে যুগ্ম সচিব শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরাও এখন প্রজ্ঞাপন জারির অপেক্ষায়। অল্প কয়েক দিনের মধ্যে তা হয়ে যাবে বলে আশা করছি।’
সংবাদ সম্মেলনে গ্রিন ডেল্টা ইনস্যুরেন্সের সিইও ফারজানা চৌধুরী বলেন, সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিমা খাত অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অথচ এ খাত নিয়ে নেতিবাচক কথাই বেশি শোনা যায়। বিমা মেলা আয়োজনের মাধ্যমে খাতটির গুরুত্ব জনগণের কাছে তুলে ধরার সুযোগ তৈরি হবে বলে তিনি বিশ্বাস করেন।
পরিচালক থাকার বিষয়ে বিমা আইনের সঙ্গে ব্যাংক আইন ও সিকিউরিটিজ আইনের সংঘর্ষ রয়ে গেছে এবং কঠিন শর্ত থাকায় অনেক বিমা কোম্পানি মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগ দিতে পারছে না। প্রশ্নোত্তর পর্বে আইন সংশোধনের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে আইডিআরএর চেয়ারম্যান স্পষ্ট কোনো জবাব দেননি।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের দিন থেকে সবার জন্য উন্মুক্ত এই মেলা চলবে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত। মেলা শেষ হবে আগামী শুক্রবার। প্রতিদিনই মেলায় থাকবে সেমিনার, বিমা দাবির চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠান, র্যাফল ড্র ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। মেলায় ৫০টি স্টল থাকছে।

সূত্র: প্রথম আলো

উপরে