আপডেট : ২৮ মার্চ, ২০১৬ ১৯:৪০

ভারতের সেরা অভিনেতা অমিতাভ, অভিনেত্রী কঙ্গনা

বিনোদন ডেস্ক
ভারতের সেরা অভিনেতা অমিতাভ, অভিনেত্রী কঙ্গনা

ভারতের ৬৩তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে সেরা অভিনেতা হলেন অমিতাভ বচ্চন। সুজিত সরকার পরিচালিত ‘পিকু’ তাকে এনে দিলো এই রাষ্ট্রীয় সম্মান। তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস’ ছবিতে দ্বৈত চরিত্রে দারুণ অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেত্রী হয়েছেন কঙ্গনা রনৌত। সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার পেয়েছে গত বছর সাড়া ফেলে দেওয়া এসএস রাজামৌলির ‘বাহুবলী: দ্য বিগিনিং’। 

সোমবার (২৮ মার্চ) বিজয়ী তালিকা ঘোষণা করা হয়। এ নিয়ে চতুর্থবার জাতীয় পুরস্কার পেলেন বিগ বি। এর আগে ‘অগ্নিপথ’ (১৯৯০), ‘ব্ল্যাক’ (২০০৫) ও ‘পা’ (২০০৯) ছবির জন্য এই সম্মান পান তিনি। তার অভিনীত ‘পিকু’র জন্য সেরা সংলাপ রচয়িতা ও মৌলিক চিত্রনাট্যকার বিভাগে সেরা হয়েছেন জুহি চতুর্বেদি। তিনি অবশ্য দুটি বিভাগেই পুরস্কার ভাগাভাগি করেছেন হিমাংশু শর্মার (তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস) সঙ্গে। 

এদিকে টানা দ্বিতীয়বার জাতীয় পুরস্কারে সেরা অভিনেত্রী হলেন কঙ্গনা। গতবার ‘কুইন’ তাকে এ সম্মান এনে দেয়। সব মিলিয়ে তৃতীয়বার জাতীয় পুরস্কার ঘরে তুললেন ২৯ বছর বয়সী এই তারকা। ‘ফ্যাশন’ (২০০৮) ছবির জন্য সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী হন তিনি। 

কঙ্গনার মতো সঞ্জয়লীলা বানসালিও টানা দ্বিতীয়বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেলেন। ‘বাজিরাও মাস্তানি’র জন্য সেরা পরিচালক হয়েছেন তিনি। ৫৩ বছর বয়সী এই নির্মাতা বলেছেন, ‘মূলধারা, আর্ট-হাউস কিংবা প্যারালাল ছবির ক্ষেত্রে পরিচালক ও চিত্রগ্রাহক ছবি বানাতে কঠোর পরিশ্রম করেন। তাই এই পুরস্কারজয় আমার কাছে অনেক আনন্দের।’

এর আগে ২০০৩ সালে ‘দেবদাস’ ও ২০০৬ সালের জাতীয় পুরস্কারে ‘ব্ল্যাক’ ছবির সুবাদে সেরা পরিচালক হন। আর গতবার তার প্রযোজিত ‘মেরি কম’ (প্রিয়াঙ্কা চোপড়া) সেরা বিনোদনমূলক ছবি হয়। তাই তার ঘরে এসেছে পুরস্কারটি। এবার স্বর্ণকমল পুরস্কারের আওতায় সেরা পরিচালক হিসেবে আড়াই লাখ রুপি পাচ্ছেন বানসালি। ‘বাহুবলী: দ্য বিগিনিং’ ছবির নির্মাতাদের হাতেও উঠবে সমপরিমাণ অর্থ। 

বানসালির ‘বাজিরাও মাস্তানি’ আরও তিনটি বিভাগে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছে। এর মধ্যে রেমো ডি’সুজা সেরা নৃত্য পরিচালক, সুদীপ চ্যাটার্জি সেরা চিত্রগ্রাহক ও তানভি আজমি হয়েছেন সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী। ‘বাহুবলী: দ্য বিগিনিং’ স্পেশাল ইফেক্টস শাখায়ও সেরার স্বীকৃতি পেয়েছে। কান উৎসব জয়ী নিরাজ গাইওয়ান ‘মাসান’ ছবির জন্য সেরা নবাগত পরিচালক হিসেবে জাতীয় পুরস্কার জিতলেন। তিনি পাচ্ছেন স্বর্ণকমল হিসেবে নগদ দুই লাখ রুপি। 

সেরা বাংলা ছবির পুরস্কার পেয়েছে গৌতম ঘোষ পরিচালিত ‘শঙ্খচিল’। সেরা বিনোদনমূলক ছবি হয়েছে সালমান খানের ‘বজরঙ্গি ভাইজান’। সেরা হিন্দি ছবি হয়েছে ‘দম লাগা কে হেইশা’। এ ছবির ‘মোহ মোহ কে ধাগে’ গানটির সুবাদে সেরা গায়িকার পুরস্কার পেলেন মোনালি ঠাকুর।  একই গানের জন্য বরুণ গ্রোভার হয়েছেন সেরা গীতিকার। 

এবার ১১ সদস্যের জুরি বোর্ডের প্রধান ছিলেন বর্ষীয়ান পরিচালক রমেশ সিপ্পি। তিনিই ভারতের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী অরুণ জেটলির কাছে বিজয়ী তালিকা সুপারিশ হিসেবে হস্তান্তর করেন।

ভারতের ৬৩তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে সেরা
চলচ্চিত্র : বাহুবলী: দ্য বিগিনিং
অভিনেতা : অমিতাভ বচ্চন (পিকু)
অভিনেত্রী : কঙ্গনা রনৌত (তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস)
পরিচালক : সঞ্জয়লীলা বানসালি (বাজিরাও মাস্তানি)
বিনোদনমূলক ছবি : বজরঙ্গি ভাইজান
পার্শ্ব অভিনেত্রী : তানভি আজমি (বাজিরাও মাস্তানি)
পার্শ্ব অভিনেতা : সামুথিরাকানি (বিসারানাই)
বাংলা ছবি : শঙ্খচিল
হিন্দি ছবি : দম লাগা কে হেইশা
নবাগত পরিচালক : নিরাজ গাইওয়ান (মাসান)
নৃত্য পরিচালক : রেমো ডি’সুজা (গান: দিওয়ানি মাস্তানি, ছবি: বাজিরাও মাস্তানি)
গায়িকা : মোনালি ঠাকুর (গান: মোহ মোহ কে ধাগে, ছবি: দম লাগা কে হেইশা)
আবহ সংগীত : ইলাইয়া রাজা (থারাই থাপ্পাত্তাই)
সংগীত পরিচালক : এম জয়াচন্দ্রন (কাথিরুন্নু কাথিরুন্নু, ছবি: ইনু নিন্তে মইদিন)
সংলাপ রচয়িতা : জুহি চতুর্বেদি (পিকু) ও হিমাংশু শর্মা (তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস)
চিত্রনাট্যকার : জুহি চতুর্বেদি (পিকু) ও হিমাংশু শর্মা (তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস)
চিত্রগ্রাহক : সুদীপ চ্যাটার্জি (বাজিরাও মাস্তানি)
স্পেশাল জুরি পুরস্কার : মার্গারিটা উইথ অ্যা স্ট্র
জাতীয় সংহতির ছবি : নানক শাহ ফকির (পাঞ্জাবি)
চলচ্চিত্র বান্ধব রাজ্য পুরস্কার : গুজরাট (স্পেশাল মেনশন উত্তর প্রদেশ ও কেরালা)

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আইএম

 

উপরে