আপডেট : ১৪ মার্চ, ২০১৬ ১৩:৩০

সালমানের জীবনে তিনিই ছিলেন সবচেয়ে বড় ভুল!

অনলাইন ডেস্ক
সালমানের জীবনে তিনিই ছিলেন সবচেয়ে বড় ভুল!

তিন বছরের বিবাহিত জীবনের নানা ওঠাপড়া পেরিয়ে অবশেষে আলাদা হয়ে গিয়েছিল দু’জনের চলার পথ। বিচ্ছেদের পর কেটে গিয়েছে ৯ বছর। কিন্তু এখনও কোথাও না কোথাও থেকে গিয়েছে না বলা বহু কষ্ট।
সম্প্রতি তাঁর বইপ্রকাশ অনুষ্ঠানে বৈবাহিক জীবনের তেমনই একটি অন্ধকার অভিজ্ঞতার কথা সর্বসমক্ষে বললেন পদ্মা লক্ষ্মী। 'লাভ, লস অ্যান্ড হোয়াট উই এট' বই প্রকাশ অনুষ্ঠানে নিজের বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে ৪৫ বছর বয়সী পদ্মা লক্ষ্মী জানালেন, বিখ্যাত লেখক ও তাঁর প্রাক্তন স্বামী সালমন রুশদি মনে করতেন তাঁর জীবনে পদ্মা ছিলেন 'ব্যাড ইনভেস্টমেন্ট'।
একটি অকপট সাক্ষাত্‍‌কারে পদ্মা লক্ষ্মী জানান, তাঁর যে এন্ডোমেট্রিওসিস আছে, সে কথা সালমনকে জানাননি তিনি। ভেবেছিলেন তাতে বিশেষ কোনও ফারাক পড়বে না তাঁদের সম্পর্কে। কিন্তু যখন এন্ডোমেট্রিওসিসের অসহ্য যন্ত্রণায় তিনি শয্যাশায়ী ছিলেন তখন থেকেই শুরু হয় বচসা ও অভিযোগের পালা। সালমনের যৌন চাহিদা মেটাতে অপারগ পদ্মার উপরে বেশ বিরক্তই হন সালমন। তাঁর এই অসুখের কথা না জানানোয় অপমানিত বোধও করেন সালমন। তাঁর আচার আচরণে বার বার বুঝিয়ে দেন পদ্মাকে বিয়ে করা তাঁর জীবনের সব থেকে বড় ভুল।
তবে বিচ্ছেদের পরে সালমনের সঙ্গে খুব ভালো বন্ধুত্বের সম্পর্ক রয়েছে এখন তাঁর। তিনি সাক্ষাত্‍‌কারে আরও বলেন, আজ পর্যন্ত তাঁর জীবনে হওয়া সব থেকে ভালো অভিজ্ঞতা হল সালমনের সঙ্গে পরিচয় ও পরিণয়। অকপটে তিনি বলেন, সালমন তাঁর কথা দিয়ে পদ্মাকে সিডিউস করেছিলেন। সালমনের আদব কায়দা, তাঁর কথা বার্তায় মোহিত হয়ে গিয়েছিলেন তিনি।
তবে বইতে অবশ্য পদ্মা অভিযোগ করেছেন সালমনের অত্যধিক যৌন চাহিদা এবং তাঁর শারীরিক অসুস্থার প্রতি কোনও রকম সহানুভূতির না থাকার কারণেই বিবাহ বিচ্ছেদের পথে তাঁকে যেতে হয়েছিল।

সালমানের আরো খবর পড়তে নিচের লিংকে ক্লিক করুন

‘‘ঘুমের মধ্যে বুঝলাম একটা হাত আমার প্যান্টির মধ্যে ঢুকছে’’

সূত্র: এইসময়

উপরে