আপডেট : ৯ মার্চ, ২০১৬ ১৬:৪৬

রক্তের সম্পর্করা মেনে নেননি সানি লিওনকে

বিনোদন ডেস্ক
রক্তের সম্পর্করা মেনে নেননি সানি লিওনকে

যতদিন দেশের বাইরে ছিলেন ততদিন একরকম। কিন্তু যেদিন থেকে এদেশে এসে নিজের কেরিয়ার শুরু করেন, সেদিন থেকেই নিজের পরিবারের কাছে অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়ান প্রাক্তন পর্ন স্টার সানি লিওন। বলিউডে নিজের কেরিয়ার শুরু করার সঙ্গে সঙ্গেই নিজের পরিবারের সঙ্গে দূরত্ব বাড়তে থাকে তাঁর। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এই ব্যক্তিগত বিষয়ে মুখ খোলেন সানি।

বিগত ক’দিন ধরেই নিজের ব্যক্তিগত আবেগ নিয়ে একাধিক বিস্ফোরক তথ্য প্রকাশ করেন সানি। একটি টেলিভিশন মাধ্যমে তাঁর সাক্ষাৎকার সম্প্রসারিত হওয়ার পরেই গোটা বলিউড দাঁড়িয়েছিল তাঁর পাশে। সেই সময়ে অভিযোগ ওঠে, ফেলে আসা জীবনকে টেনে নিয়ে ব্যক্তিগতস্তরে আক্রমণ করা হয়েছে সানিকে। ঘটনার পরেই ব্যক্তিগত জীবন, আবেগ এবং তাঁর স্বামী ড্যানিয়েলের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক নিয়ে মুখ খোলেন সানি।

এবার সরাসরি নিজের পরিবার নিয়ে কথা বললেন তিনি। সানি জানান, গোটা ভারত তাঁকে সাদরে গ্রহণ করলেও তাঁর রক্তের সম্পর্কের মানুষরা তাঁকে বিন্দুমাত্র মেনে নেননি। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, সানিকে নিজের পরিবারের মেয়ে বলতেও নারাজ তাঁরা। দুঃখের সঙ্গেই সানি জানান, দেখা করা বা বাড়িতে আসতে বলা তো দূর অস্ত, ন্যূনতম একটা ফোনও করেন না কেউ।

এই দৌড়ে অবশ্য সানি একাই নন, এদেশের একাধিক অভিনেত্রীকেও সহ্য করতে পরিবারের অবজ্ঞা। দক্ষিণী অভিনেত্রী, বম্বশেল সিল্ক স্মিতাকে জীবনের শেষদিন পর্যন্ত মেনে নেয়নি তাঁর পরিবার। রক্তের সম্পর্কে মানুষজন তাঁকে নিজেদের পরিবারের মেয়ে বলে পরিচয় দিতে লজ্জা পেয়েছেন।

অভিনেত্রী নার্গিস ফকরি এদেশে তাঁর কেরিয়ার শুরু করার অনুমতি পাননি তাঁর পরিবারের থেকে। শেষ পর্যন্ত বাড়িতে না জানিয়ে পাসপোর্ট আর সামান্য কিছু পোশাক নিয়ে চলে আসেন এদেশে। বাড়ি ছাড়ার পরে তাঁর সঙ্গে আর যোগাযোগ রাখার প্রয়োজন বোধ করেনি তাঁর পরিবার।

জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী প্রিয়ঙ্কা চোপড়াও সম্প্রতি মুখ খুলেছেন তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে। বাবা মা-র পূর্ণ সমর্থন পেলেও পরিবারের বাকি সদস্যেরা তাঁর মডেলিং, অভিনয় জগতে আসাকে বাঁকা চোখেই দেখতেন। পারিবারিক অনুষ্ঠানে সর্বসমক্ষে তাঁকে মজাচ্ছলে ‘কালি’ বলে (গায়েক রং কালো হওয়ার কারণে) ডাকা হতও বলেও জানান এই অভিনেত্রী।

উপরে